Professional Development

The need for critical thinkers: Now more than ever

1920 1080 Nafisa Naomi

As an avid reader of different blogs and articles, Cracked was one of the websites I used to frequent in my early twenties. One of the many articles which has played a big part in shaping my perception was called 6 Harsh Truths that will make you a better person. A part of that article describes the following situation:

Someone you love got shot and is lying on the street, bleeding and screaming in pain. A man rushes up to you and asks you to step aside. He squats to look over your loved one’s bullet wound and pulls out a pocket knife. He is preparing to operate on the wound right there. Feeling completely defeated and helpless, you ask him if he is a doctor. He tells you he isn’t. You are a little taken aback at this point and you ask, “But you know what you’re doing, right? You’re an old Army medic, or …”

He says no and  goes on to tell you that he is punctual, earns an honest living, and pays his taxes on time. He is a great son to his mother, lives a life full of rewarding hobbies, and does not use abusive language. Confused and frustrated you ask, “But how does any of that matter? Someone I love is lying here bleeding. I need someone who can operate on a gunshot wound. Can you do that or not?!”

This scenario struck a chord with me on many levels. At present, when the world is fighting to survive through a global pandemic, we need proactive doers who can innovate, take initiative, and get things done. This is why critical thinking is so relevant and important, especially in today’s world. Here is my take on why it’s a skill that the currently ailing world needs.

It is the ultimate road to problem solving

During a crisis, your critical thinking skill will lead you to a solution to the problem. When a situation arises, especially one that requires a specific solution, it will not matter how good a Samaritan you have been all your life. The question boils down to whether you can solve the problem at hand or not. Your critical thinking ability allows you to see beyond what meets the eye, fully understand the situation at hand and act accordingly.

It makes you a better decision maker

In any given situation, specifically at the workplace, your position calls for making decisions which would impact others who work around you. A critical thinker is more likely to make a sound, well-rounded decision where everyone can make the best out of a situation or be able to minimize any negative impact on others during a crisis.

It encourages curiosity

As an adult, a child who never stops asking questions, no matter how mundane or silly, has always been my favorite. A critical thinker is always curious and will always ask questions because that will lead them to change from how they are to how they should be and beyond. Critical thinkers are also hardwired to find solutions to existing problems.

It ensures that your opinions are well-informed

It is said, test takers who end up with a P on the Myers’ Briggs 16 personalities test are more on the perceiving side. They usually stay open to the possibility that they might stumble upon any piece of information that may change the course of forming an opinion. This helps them to form better, more informed opinions.

Critical thinking improves relationships

Critical thinking strongly fosters the nurture and growth of a core human traitempathy. Empathy is the most vital ingredient to understanding the people around you and the environment you are in. This aspect of critical thinking allows you to empathize with others and to understand what drives them. It thereby helps you form healthier, more fulfilling relationships.

It fosters independence

Critical thinkers rely on their conscience for self-reflection and correction. This means that they are not easily swayed by external influences- something which makes them accountable and responsible individuals. A critical thinker is more likely to show higher mental and emotional stability because the person is inclined towards paving his own path through hurdles, making mistakes, learning from them, and making necessary corrections completely on their own. 

It’s a life skill

Educators all over the world believe that critical thinking is something that anyone should learn as early as their formative years and continue to practice all their lives. It is not something that you learn from a specific textbook or within the walls of a classroom. It is a skill you exercise, a muscle you grow, and continue to grow throughout your life. BYLCx offers a course on critical thinking but needless to say, your learning of the skill does not end with the course. It needs to be honed and exercised in the real world which needs proactive doers, problem solvers, go getters. 

Source:

https://www.cracked.com/blog/6-harsh-truths-that-will-make-you-better-person/

https://www.16personalities.com/personality-types

The shifts in employment and the economy

7680 4320 Arnob K. Saha

The COVID-19 pandemic will potentially result in millions of people losing their jobs all around the world. Bangladesh, being globally connected, will bear the brunt as well. Few industries, such as travel and tourism, hospitality, airlines, and manufacturing, have already taken a major hit, followed by a trickle-down effect on the other closely connected industries. 

The livelihood of millions of poor people is connected to the RMG sector and cancellation of existing orders coupled with non- or deferred payment of orders have already put many people’s survival at stake. Several small factories will be forced to shut down operations in the coming days, as they have insufficient capacity to recover from the losses that they have already incurred.  

Additionally, the service sector has been badly impacted and the health risks of being in close proximity to the public is adding to the strain suffered by the industry. Even if the situation improves in the next one or two quarters, Bangladesh will need at least one more year to fully recover from the losses. 

Over the past two months BYLC’s Office of Professional Development (OPD), which works on the professional training needs and placement opportunities for BYLC alumni, has been hosting Career Conversations that brings in experienced professionals from different sectors for virtual discussions on shifts in business needs and emerging skills sets required to adapt to the changing job market. In conversation with them, all the speakers spoke in unison on the need to develop robust solutions to alleviate the impact of COVID 19 on people and businesses. Some of the proposed solutions are outlined below.   

Support from the government and international donors

The government of Bangladesh has already declared multiple stimulus packages to alleviate the struggles of different industries, as well as small and medium enterprises. However, experts claim that this may not be enough. A lot more financial support is required from the government and international bodies to prevent job losses and ensure basic food and shelter for the greater population. Businesses need to keep running and pay salaries to their employees, which is where financial assistance from external bodies is absolutely imperative. 

Establish alternative means to navigate through difficult times 

COVID-19 has been a huge blow for organizations and individuals who live day-to-day and could not invest in savings or have the luxury to indulge in insurance or provident funds. 

Moving forward, organizations should try to maintain an emergency reserve to support their staff in such difficult times. If possible, they should rethink their overall payroll system because crises such as the ongoing pandemic could potentially become a common global occurrence. Advance preparation can make a significant difference on the impact of any future global crisis.  

Focus on reskilling oneself to keep abreast of the changing times

All the speakers urged on upscaling one’s skills to stay relevant in these ever-changing circumstances. People should start becoming comfortable with technology and invest in digital literacy. The demand for these skills will increase and new opportunities in this field will arise. Businesses will need to learn to conduct operations online and would require tech-savvy people to help them make the transition. Managers will need to learn to manage their subordinates online. Companies will also need to develop systems to engage its employees virtually and keep the work running even if people are working remotely. 

Contribute to the society by helping people in need

Daily wage laborers, who live hand to mouth, have been the most affected by COVID-19.  Each of us can take responsibility for at least one underprivileged person or family. Remember that daily wage earners give their blood and sweat for the development of the country but have to rely on scrapes to survive even in normal times. If all capable, privileged individuals do their part of contributing to society, the impact of this coronavirus will be far lesser than what we are currently experiencing. 

In the past, there have been several global economic disruptions. However, none of them have caused havoc on the same scale as COVID-19. Circumstances are different and so should be our actions. Let’s take this change positively and learn to work with patience, resilience, empathy, and be appreciative of the climate and environment for a healthy future. 

Maximizing on online learning

1920 1080 Nafisa Naomi

As a teacher who has been in this profession for nearly a decade, the first thing that comes to mind when I hear the word ‘classroom’ is a room full of thirty odd children, bubbling with unbridled energy, the usual cacophony, the torrent of questions that come at you even before you say a word, and having to say “Quiet!” loudly enough to be heard across the next three rooms just to draw attention. Those are only a few ‘hacks’ I used to do to make the best of my 40 minutes in a traditional classroom. At present, with the major portion of the education industry shifting to the online platforms, students are spending a big chunk of their day attending zoom sessions and turning in assignments. As an online learner who invests time into one or more online courses, you owe it to yourself to make the most out of your learning experience. This blog post is my take on how you can get the best out of your journey of online education.

Appreciate online learning practices


A core benefit of online learning is the amount of time it saves for the learner, time which would have otherwise been spent in a traditional classroom as well as in the commute to it. It therefore saves a good amount of time and money. Utilize that time to gather your learnings with the course and to review materials previously covered. Consistent practice and repeated revisions will help you internalize the concepts better.

Dedicate a study space


Whether it is the corner table of a local cafe or the study table in your room, a dedicated study space makes a major difference in your learning and overall productivity. Make sure it is calm, well lit and comfortable, devoid of all things that may distract you and has everything you might need within reach. Being around your study space at a specific time of the day will direct your mind towards studying and achieving your daily goals for the course.

Identify learning objectives


Breaking down your course into daily bite sized goals creates a clear and defined road map for you to follow. This helps you set your mind in a direction in which it is headed and helps you to visualize the path ahead. Breaking it down into smaller targets as you progress also makes it less overwhelming altogether. The idea is to pick a small chunk of the course, ace it first, and then move on to the next.

Time management


Strong time management skills is an essential tool when it comes to achieving study goals. To ensure staying on track, always plan ahead and have the course necessities clearly chalked out while keeping an eye on assignments and due dates. Do not procrastinate and leave things for until right before the deadline. This is an easy trap to fall into for many (including yours truly). It not only becomes increasingly overwhelming as the deadline approaches, it also has a knock-on effect on the upcoming phases of the course, leaving an overall impact on the progress of the course. Keep a calendar handy with all the assignment due dates marked. This will help you manage study time effectively.

Self Discipline

This is a key determining factor of the pace and the quality of the progress you make in and through the course. That makes it a great opportunity to practice and build on your self discipline. Make it a point to not feel discouraged if you go off track for a bit. Leave some hours on your timeline to take a break and relax before you hop back on with some renewed energy.

Frequent contact with trainer

Unlike a traditional classroom where you might have to wait your turn to talk to the teacher, online courses enable the instructor to be much more accessible. Between discussion forums, emails, and text messages, it is easy to ask questions to clarify your concepts further or for help when you are facing any difficulties. This way you get a better understanding of the course in its entirety. The constant feedback from the instructor from time to time helps you stay on track and head in the right direction.

Virtual participation

Ask that question in a zoom call or post that opinion on a discussion board. Do not hesitate or second guess yourself. It is common to fear that what you say might not induce a lot of response from or draw the attention of the rest of the class, but that does not always need to be the goal. It is an agreed upon fact that online learning can make you feel isolated and learning in isolation can be very difficult. Active participation in a virtual class discussion helps feel involved and is a healthy reminder of the fact that there are others who have embarked on the same journey as you.

Staying motivated and regaining momentum

When it comes to online learning, if you go slightly off track or fall behind on schedule, it is very easy to lose the drive you had at the beginning. A great way around it is to simply talk about it. Share your learning experience with others whether it’s your course mate or your family. Talk about what you learned at the dinner table. Explain a new concept you picked up to someone who has no knowledge of the subject matter. This will serve as a constant reminder of the progress you have made. It will help you to collaborate with other learners of the course and thereby regain your original momentum.

Source: https://elearningindustry.com/get-the-most-out-of-your-online-course-15-ways

Contemplating the new normal for HR and People Development

1920 1080 Shafkat Hassan

Political analyst Robert Kelly is live on BBC News, discussing the heated topic of politics in the Korean peninsula when suddenly his adorable little daughter and son strut into the scene while his wife desperately tries to salvage the situation—all on live TV, broadcasted around the world. 

While this immediately went viral in 2017, such an incident might not seem so odd in the new normal of 2020 where our family and pets keep inadvertently walking into our Zoom meetings. While there are many aspects of our lives that will be noticeably different post-COVID-19, as an HR professional, I would like to focus on the perspective of people development and workplace adaptation to new changes. 

Which brings me to the first and most obvious question on everyone’s mind, will there even be people in the workplace?

The Remote Work

According to Global Workplace Analytics, over 4.7 million employees across the US have been working from home since 2017. Another US based study by OWL Labs found that employees allowed to work remotely were happier in the job, felt less stressed out and actually worked longer than onsite employees because they enjoyed it. What is even more striking is that 78% of respondents said they were even willing to take a pay cut to maintain their remote work status.

Personally, BYLC was the first organization on these shores that I’ve come across that had such a policy, long before the current predicament. BYLC embraces this concept and allows its employees 5 days of “Work from home” per month.

However, now we are in a world where it is almost mandatory to work from home and there are benefits for the employers too. They can save on variable office running costs and can even run efficiently with less space if fewer staff have to be in the office. 

Of course, some jobs still require people to be onsite while others require special equipment which are not available at home. However, do the vast majority of people really need to go to an office to do what they can do better at home?

The Gig Economy

The Gig Economy involves a system where people work on flexible, part-time, or freelance jobs and opportunities. 

Bangladesh has already embraced freelancing with around 500,000 active freelancers raking in around USD 100 million annually, according to the ICT division of Bangladesh.

However, the shift we are talking about is more than just freelancing and involves local companies and their hiring practices. As we get ready to face a possible global depression, companies are expected to either shrink operations or work with a leaner workforce. This will create a demand for skilled short-term professionals in a multitude of different fields, as it would be far riskier and more expensive for employers to hire staff on full time contracts in such a volatile environment. 

The workforce though should not be worried. This will eventually give professionals more freedom to work on the projects they like, the ability to work on multiple projects at the same time, and most importantly, have more control over the terms under which they work.

The Digital Revolution

We are deep into the third industrial revolution, a.k.a. the digital revolution. Organizations need to embrace this change now, not just as a priority but as a necessity. 

We need to embrace technologies that can help us speed up collaboration, increase communication, and be more data centric. While we have barely scratched the surface with data analytics here at home, the rest of the world has already moved on to more advanced techniques, such as working with artificial intelligence and machine learning. A basic understanding or knowledge of programming is quickly becoming a norm for the workplace of the future. We need to follow suit and start taking more informed decisions based on real world data as the world becomes harsher and reduces the margins for error for us all.

While all this talk of change may sound scary now, we need to realize the only thing that is constant in the world is change. Change is the real normal in our world and what matters is whether we embrace it or resist it. Every major event brings with it both losses and new opportunities. It is up to us to decide what we prioritize and how we decide to move forward.

Effective communication: improving our social skills

7680 4320 Tangila Binte Thuhid

Social skills are essential in both our professional and personal relationships. Although it is not a skill that is usually taught in schools or colleges, it is essential to learn and cultivate for our own well-being. 

Before we start practicing social skills, we have to first understand what the term entails. Generally, social skills are recognized as interpersonal or soft skills, which involves verbal as well as non-verbal communication styles. Verbal communication involves spoken language, while nonverbal communication tilts toward body language, facial expressions, and eye contact. Strong social skills can also help to build and maintain successful relationships, both professionally and personally.

For developing strong adaptability traits in a public sphere, there are several recommended ways that can aid in developing social skills.

Being productive and taking initiatives

This does not mean dominating a conversation but being well-prepared, engaging more with people, and taking ownership.

Accepting feedback

 Generally, people are hesitant about receiving feedback. However, it can be useful to ask friends, mentors, or supervisors for honest feedback to improve oneself. These feedback can be translated into achieving personal and professional goals in the long run.

Prioritize how rather than what to say

You might have a brilliant idea, but no one at your workplace will be on board if you do not properly communicate it. Body language plays a role here as well, as research says, 97% of our communication is unspoken. Improving body language can increase acceptance of a message or idea.

Speak clearly

Do not mumble when conversing with anyone. Train yourself to speak slowly and coherently, so that everyone involved in the conversation can understand your point.

Practice actively listening

There are few tricks to improve active listening skills. Make eye contact with the person with whom you are having a conversation. Reiterate your understanding. Acknowledge their feelings and underscore what you have understood from the conversation. People need to be made to realize that they are being heard, and active listening is the key to create that desired comfort zone for people to speak up. 

Be respectful of people’s choices and personal space 

A simple ‘thank you’ can go a long way. Having good manners and mutual respect is an essential social skill. Giving personal space and treating people the way they want to be treated will help build your social skill in an interpersonal manner.

Be empathetic and build a connection

 Show respect and appreciation of other’s work and achievements. A good reminder is to put yourself in other people’s shoes and understand their point of view before taking any impulsive actions.

Social skills are the core skills you need to learn and practice to thrive in every relationship, whether it be personal or professional. The best way to develop these skills is to put your learnings into practice. The more you practice, the better you will be at it.

                                                                         

‘বাড়ি থেকে কাজ’ করার সময় নিচের ১০ টি টিপস মানছেন তো?

1920 1280 Hasib Al Mamun

কিছু মানুষ ‘বাড়ি থেকে কাজ’ করতে ভালোবাসেন, আবার কারো কারো এটা একদমই পছন্দ না। এই সময়ে আপনি বিশ্বের যে প্রান্তেই থাকেন না কেন, হোক তা ঝুঁকিপূর্ণ বা ঝুঁকিমুক্ত, আপনাকে কিন্তু বড় একটা সময় ঘরেই কাটাতে হচ্ছে। 

স্বাভাবিক কাজকর্মের উপর করোনা ভাইরাসের প্রভাব শুরুর অনেক আগে থেকেই নতুন ধরনের এই কার্যপ্রক্রিয়া জনপ্রিয় হয়ে উঠছিল। গ্লোবাল ওয়ার্কপ্লেস এনালিটিকস এর তথ্য মতে, ২০০৫ সাল থেকে এই সংখ্যাটি ১৭৩% বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রায় ৪৭ লক্ষ মানুষ কোন না কোন ভাবে (আংশিক হলেও) বাড়ি থেকে কাজ করছেন।

এখন যে ১০ টি টিপস এর কথা বলব সেগুলো কাজে লাগিয়ে আপনি বাড়িতেই সুষ্ঠুভাবে কাজ করার মত টেকসই দাপ্তরিক পরিবেশ তৈরি করতে পারবেন। করোনা ভাইরাসের কারনে সৃষ্ট অচলাবস্থা দীর্ঘ হোক বা স্বল্প, আশা করি এই পরামর্শগুলো আপনাকে পরিস্থিতির সাথে খাপ খাইয়ে নিতে এবং আরও ভালোভাবে কাজ করতে সাহায্য করবে।

 

১। কাজের শিডিউল ঠিক করে নিন

যখন আপনি নিয়মিত অফিসে যান, তখন সচরাচর একটা নির্দিষ্ট রুটিন মেনে কাজ শুরু এবং শেষ করেন। তবে বাড়ি থেকে কাজ করার বেলায় এই বাধ্যবাধকতা কিছুটা শিথিল থাকে। কেউ দেখছেনা আপনি কখন কাজ শুরু করছেন বা ইতি টানছেন, সুতরাং এখানে দায়বদ্ধতার বিষয়টা একটু অন্যরকম থাকে। এতে করে কিছু মানুষের জন্য সঠিকভাবে কাজ করা কঠিন হয়ে যায়। যারা অতিরিক্ত কাজের চাপের জন্য লম্বা সময় ধরে কাজ করে, তাদের জন্য ব্যক্তিগত জীবন ও কাজের মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করা আরও কঠিন হয়।

যখনই আপনি কাজ শুরুর সময়টা ঠিক করছেন, তখন নিজের সকালের রুটিন সম্পর্কে ভালোভাবে ভেবে নিন। সাধারণত সুন্দরভাবে দিন শুরু করতে আপনি যে কাজ গুলো করেন যেমন নাস্তা করা, গোসল করা বা ব্যায়াম করা, সেগুলোর জন্য পর্যাপ্ত সময় রাখুন। আপনাকে রাতের রুটিন বিবেচনায় আনতে হবে। সারাদিন যেন মানসিক ও শারিরীকভাবে সুস্থ থাকেন, সেজন্য কিছুটা অবসর সময়ও বের করতে হবে। সব ভেবেচিন্তে যে শিডিউলটি বানালেন তা পরিবার/রুমমেটকে জানাতে হবে। অবশেষে সেটা আপনার কলিগদের জানান। ফলে তারা আপনার কাজের সময় সম্পর্কে জানবে এবং এর মধ্যেই আপনার সাথে মিটিং সহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাজ শেষ করতে পারবে।

 

২। মানানসই পোষাক পড়ুন

হয়তবা সারাদিন আপনার সাথে কারোর ই দেখা হবে না। তবুও যে পোষাক পড়ে ঘুমিয়েছেন সেটা পড়েই যদি কাজ শুরু করেন তাহলে মানসিকভাবেই কার্যকারিতা হারিয়ে ফেলবেন। প্রথমদিকে হয়ত এভাবেও আত্মবিশ্বাসী থাকবেন, তবে সময়ের সাথে তা অতৃপ্তিতে পরিণত হবে। সব কাজ শেষ করেও হয়ত মনে হবে আপনি আসলে ঠিক সেভাবে কাজ করতে পারেন নি, যেভাবে করা উচিৎ ছিল।

পরিপাটি ফর্মাল পোষাক আপনাকে মানষিকভাবেই কাজের জন্য প্রস্তুত করে দিবে। এতে আপনি আরও আত্নবিশ্বাসী হবেন এবং দিনশেষে কাজের স্বার্থকতা খুজে পাবেন।

 

৩। সহকর্মীদের সাথে যোগাযোগ রাখুন 

আপনার কাজের ধরণের উপর নির্ভর করে কনফারেন্স কল এবং ভার্চুয়াল টিম মিটিংয়ের মাধ্যমে আপনার কলিগদের সাথে যুক্ত থাকুন। কিন্তু আপনি যদি একা কাজ করেন অথবা মিটিংয়ে যুক্ত হওয়ার প্রয়োজন না থাকে তবুও সহকর্মীদের সাথে নিয়মিত ভার্চুয়ালি যোগাযোগ করার চেষ্টা করুন। তাদের জীবন বা কাজের খোঁজখবর নিতে পারেন। এতে করে বিচ্ছিন্নভাবে কাজ করার ফলে সহকর্মীদের মধ্যে যে দূরত্বের সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে তা হ্রাস পাবে।

 

৪। কাজের ফাঁকে হাটাহাটি করুন  

বাড়ি থেকে কাজ করলে একটি সম্ভাব্য বিষয় হতে পারে যে আপনি আপনার সাধারণ জীবনযাত্রার তুলনায় একটু বেশি একঘেয়ে জীবনযাপন করবেন। বিশেষ করে যখন হঠাৎ করেই বাসা থেকে কাজ করা শুরু করবেন। এই একঘেয়েমি কাটানোর জন্য কিছুক্ষণ পরপর বারান্দা, উঠোন বা ঘরেই হাটাহাটি করুন। এতে করে আপনার চোখ একটানা কম্পিউটার স্ক্রিনের দিকে তাকানো থেকে বিশ্রাম পাবে এবং রক্ত সঞ্চালন বাড়বে। 

হাটার সময় কাজের কথা সেরে নিতে পারেন। ১০ মিনিট হালকা ব্যায়াম করতে পারেন যা মানসিক স্বাস্থ্য এবং কর্মক্ষমতার জন্য দরকারি। যেহেতু সামাজিক দূরত্ব মেনে চলছেন সেহেতু একাকীত্ব দূর করতে ভিডিও কলে অন্যদের সাথে গল্প করতে পারেন।  

 

৫।  বাসাতেই ‘মিনি অফিস’ বানান

আপনি যেমন সকালে উঠে ঘুমের পোষাকেই কাজ শুরু করে দিতে চাইবেন না, তেমনি বিছানায় বসে কাজ করাও উচিত হবে না। ঘরেই অফিস করার জন্য একটা উপযুক্ত জায়গা বেছে নিন। এতে আপনি সহজেই বাসা আর অফিসের মধ্যে একটা সীমারেখা টানতে পারবেন।

এটা ঠিক যে সবাই কাজ করার জন্য এমন একটা প্রশস্ত আরামদায়ক জায়গা ভালোবাসে যেখানে বিশাল জানালা এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ আলো-বাতাস আছে। এমন একটা জায়গা নির্বাচন করুন যা কম কোলাহলপূর্ণ এবং কাজে বিঘ্ন ঘটার সম্ভাবনাও কম। এছাড়াও, একটা আরামদায়ক চেয়ারও জোগাড় করে ফেলতে পারেন, সুন্দর ভাবে কাজ করার জন্য এটি চমৎকার একটি বিনিয়োগ হবে।

 

৬। মনোযোগ সরে যায় এমন কাজ হতে দূরে থাকুন

বাড়ি থেকে কাজ করার অন্যতম চ্যালেঞ্জ হচ্ছে মনোযোগে বিঘ্ন ঘটায় এমন কাজগুলো থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখা। মনে হয় প্রায় শেষ করে ফেলা উপন্যাসটা বুঝি ডাকছে। পছন্দের সিরিজটি বোধহয় অপেক্ষা করছে কখন তা দেখবেন। অপরিষ্কার কাপড়গুলো মনে হয় এখনই ধুয়ে দেয়া উচিৎ ইত্যাদি।

তবে আপনাকে যেটাই ডাকুক না কেন, ডাকে সাড়া দিতে যাবেন না। আপনার মনে হতেই পারে, “এই ছোট্ট একটা কাজ করব, কে বা জানবে?” কিন্তু একটা কাজই নিমিষে আপনাকে জড়িয়ে ফেলতে পারে অন্যান্য কাজে। তাই অন্য কোন কিছু না করাই ভালো। সারাদিনে কি করবেন তা আগেই ঠিক করে রাখলে এবং নির্ধারিত কাজের জায়গায় স্থির থেকে কাজ করলে আপনার মনযোগ বিঘ্ন ঘটার সম্ভাবনা কম। যে কাজ আপনি অফিসে থাকলে করেন না, সে কাজ বাড়ি থেকে অফিস করার সময়ও করবেন না।

 

৭।  গান শুনুন

অনেকেরই বাসার পরিবেশ খুব শান্ত। তারা অফিসের কর্মচঞ্চল আবহটাকে মিস করেন। আবার অনেকের বাসাতেই ঠিক তার উল্টো চিত্র। পরিবারের অন্য সদস্যদের বিভিন্ন কাজে এত শব্দ তৈরি হয় যে তাতে অফিসের কাজ ব্যাহত হয়। এক্ষেত্রে, কানে হেডফোন গুজে গান শোনা যেতে পারে। তাহলে বাইরের কোন আওয়াজ ই আসবে না। সেজন্য আপনার পছন্দমত বেছে নিন ইন্সট্রুমেন্টাল, প্রিয় শিল্পী বা ব্যান্ডের গান অথবা শুনতে পারেন অন্য যেকোন বাদ্যযন্ত্র।

 

৮। অফিসের সময় শুধু অফিস করুন

গুরুত্বপূর্ণ কাজ করছেন, এমন সময় হঠাৎ আপনার রুমমেট, স্ত্রী বা মা এসে জিজ্ঞেস করল, “বাজার করতে যাওনি কেন? সারাদিন ঘরে বসে করলেটা কি?”

প্রশ্ন শুনে বাড়তি চাপ অনুভব করতে পারেন। বাড়ি থেকে কাজ করার অন্যতম সুবিধা হচ্ছে অফিসের ফাঁকে ঘরের কাজে সহযোগীতার করা যায়। তবে সেটা নিয়মিত করে পরিবারের প্রত্যাশা বাড়াবেন না। অফিস টাইমে শুধু অফিসের কাজই করা উচিত। অন্যথায় কোন কাজই শেষ করতে পারবেন না। বাইরের কোন কাজ করতে পারছেন না বলে অপরাধবোধ রাখবেন না। আপনি তাই করছেন যা করা উচিৎ।

 

৯। চেক ইন মিটিং দিয়ে কাজ শুরু করুন 

যখন দলের সবাই বাড়ি থেকে কাজ করছেন, তখন দিনের শুরুতেই চেক ইন মিটিং করা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এতে কার কি কাজ এবং কোন সহকর্মীর কাছ থেকে দল কি প্রত্যাশা করছে, সেটা স্পষ্ট হয়। তবে মিটিং এর সময় ঠিক করার আগে সবার সাথে আলোচনা করে নেয়া জরুরী। সকলের সুবিধাজনক সময় এবং কাজের শিডিউল বিবেচনা করেই মিটিং এর সময় নির্ধারণ করা উচিত। এছাড়াও মিটিং এ অংশগ্রগণকারীদের টাইমজোন একই কিনা? কোন প্লাটফর্মে মিটিং হবে? ভিডিও নাকি অডিও মিটিং হবে? এসব বিষয়ও আগে থেকেই ঠিক করে রাখতে হবে। কেননা কেউই অপ্রস্তুত বা এলোমেলো অবস্থায় মিটিং এ অংশ নিতে চায় না।

একইসাথে, ভিডিও মিটিং সহকর্মীদের বন্ধন দঢ় করে এবং পারস্পরিক যোগাযোগ বাড়ায় । এছাড়া বিভিন্ন স্থানে কাজ করা সবাইকে সমান্তরালে আনতেও এটা কাজ করবে। সবার সম্মিলিত প্রত্যাশা পূরণে কিভাবে কাজ করা যায় সে বিষয়ে আলোচনা করতে পারেন এবং শুরুতেই বাড়ি থেকে কাজ করার এই টিপসগুলোও সকলকে জানাতে পারেন।

 

১০। ধৈর্য রাখুন

এই অস্থিতিশীল সময়ে আপনি সহজেই অবসাদগ্রস্থ বা দ্বিধান্বিত হয়ে যেতে পারেন। যতবেশি সম্ভব নিজের সাথে, সহকর্মীর সাথে এবং অন্যান্য সকলের সাথে ধৈর্যশীল আচরণ করুন। অন্যদের প্রতি নিয়মিত কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন, এই অভ্যাস আপনাকে আরও ভালো নেতা হতে সাহায্য করবে। 

এমনকি যদি প্রতিষ্ঠানে, দৈনিক রুটিনে, অথবা জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রে নাটকীয় পরিবর্তনও ঘটে তারপরও চাপমুক্ত থেকে এবং সহনশীল হয়ে ধৈর্যের সাথে পরিস্থির মোকাবেলা করতে হবে। এটা আপনাকে অনিশ্চয়তা এবং উদ্বেগ সামাল দিতেও সাহায্য করবে।

যেহেতু আপনি এবং আপনার সহকর্মীরা বাড়ি থেকে কাজ করছেন, মনে রাখবেন প্রত্যেক মানুষই একে অন্যের হতে আলাদা। প্রত্যেকেই ভিন্ন ভিন্ন বাধা বিঘ্নের সম্মুখীন হবে যা হয়ত আমরা ভিডিও বা কনফারেন্স কলে দেখতে পাবো না। নিজের মত করে স্বাচ্ছন্দে কাজ করুন। অন্যকে বুঝুন এবং নমনীয় আচরণ করুন। এই পরিস্থিতির সাথে নিজেকে মানিয়ে নিন। যদি এটা ক্ষণস্থায়ীও হয়, তবুও আপনি জানবেন যে আপনি পেরেছেন। 

 

   

  

 

যে ৭টি উপায়ে কর্মক্ষেত্রে স্ট্রেস কমাতে পারেন খুব সহজেই

1000 668 Sherazoom Monira Hasib

কর্মক্ষেত্রে স্ট্রেস অন্যতম একটি সমস্যা। যখন আপনি স্ট্রেসে থাকবেন, স্বাভাবিক কাজগুলো অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হবে, যার কারনে অফিসে আপনার সামগ্রিক পারফরম্যান্স খারাপ হয়ে যেতে পারে এবং চাকরিতে আপনার উন্নতি বাধাগ্রস্থ হতে পারে। অনেকেই বুঝে উঠতে পারেন না ঠিক কিভাবে এই সমস্যা কাটিয়ে উঠা যায়। এর সমাধান কিন্তু খুব বেশি কঠিন নয়। আপনাকে শুধু কিছু ব্যাপার খেয়াল রাখতে হবে, আর মনে রাখতে হবে কাজের ব্যাপারে স্ট্রেস নেয়া কোনও সমাধান নয়। চলুন দেখে নেয়া যাক কিছু উপায় যা কাজের ক্ষেত্রে স্ট্রেস থেকে আপনাকে দূরে রাখবে।

১. কেন স্ট্রেস হচ্ছে তা খুঁজে বের করুন

কাজের ক্ষেত্রে স্ট্রেস হোক আর অন্য কোনও ক্ষেত্রে হোক, সবার আগে এর পিছনের কারনটা খুঁজে বের করা জরুরি।  বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় খুব ছোট ছোট ব্যাপার থেকে স্ট্রেস এর উতপত্তি। যেমন, আপনি হয়তো অফিসের কাজগুলো প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে শেষ করতে পারছেন না আর তাই স্ট্রেস হয়ে যাচ্ছে। আবার এমন হতে পারে রাতে আপনার ভালো ঘুম হয়নি তাই সকালে অফিসে অনেক স্ট্রেস হচ্ছে কিন্তু আপনি হয়তো দায়ী করছেন অফিসের কাজের চাপকে। তাই কারণগুলো আগে খুঁজে বের করুন আর তারপরে এর সমস্যার ব্যাপারে মনোযোগ দিন।

২. রুটিন তৈরি করে কাজ করুন

প্রায় প্রত্যেকেরই একটা সাধারণ সমস্যা রয়েছে আর তা হলো, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে না পারা।  কখনও কি ভেবে দেখেছেন কেন এই ব্যাপারটা হয়ে থাকে? এর পিছনে প্রধানত যে কারনটা দায়ী তা হচ্ছে, আমরা কাজের ক্ষেত্রে অনেক সময়ই রুটিন মেনে চলি না। যে কোনও কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করার প্রধান উপায় হচ্ছে কাজগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তালিকা করে ফেলা। এর সুবিধা হচ্ছে, যখনই একটি করে কাজ শেষ হবে, আপনি অনেক বেশি আনন্দ পাবেন। এতে করে পরের কাজটা আপনি পূর্ণ উদ্যোমে শুরু করতে পারবেন। কিন্তু খেয়াল রাখতে হবে সে রুটিনে যেন সময়ের ব্যাপারটা ভালো করে মানা হয়। এমনভাবে রুটিনটা করুন যাতে করে বিশ্রামের কিছু সময় পান। এই অভ্যাসটা একবার করে ফেলতে পারলে আপনার কাজগুলো নির্ধারিত সময়েই শেষ হবে।

৩. আপনার সুপারভাইজরের সাথে কথা বলুন

আপনি হয়তো অতিরিক্ত স্ট্রেসের কারনে কোনও কাজই করতে পারছেন না। ব্যপারটা যদি এমন হয়ে থাকে যে কাজের চাপ অনেক বেশি আর আপনি সময়ের মধ্যে সব শেষ করতে পারছেন না, সুপারভাইজরের সাথে এ ব্যাপারে কথা বলুন। তাঁকে বুঝিয়ে বলুন কোন ব্যাপারগুলোতে আপনার সমস্যা হচ্ছে। বেশিরভাগ মানুষ দিনের পর দিন স্ট্রেস নিয়েই কাজ করে আর তা আরও খারাপ ফলাফল বয়ে আনে। শুরুতেই যদি আপনি এ ব্যাপারে সতর্ক না হোন তা আপনার কাজের মূল্যায়নে অনেক প্রভাব  ফেলবে। তাই স্ট্রেস থেকে মুক্তি পেতে হলে অবশ্যই সেটা নিয়ে আপনাকে কথা বলতে হবে। চেষ্টা করুন নির্দিষ্ট একটা তালিকা করে ফেলতে যেখানে আপনি উল্লেখ করতে পারবেন ঠিক কোন বিষয়গুলো নিয়ে আপনার স্ট্রেস হচ্ছে। আরও ভালো হয় যদি আপনার কোনও সাজেশন থাকে আপনার সুপারভাইজরের কাছে যা স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করবে।

৪. নিজেকে অর্গানাইজড রাখুন

স্ট্রেস অনেকটাই মনের সাথে যুক্ত। আপনার মন যদি ফুরফুরে থাকে, স্বাভাবিকভাবেই স্ট্রেস থেকে আপনি মুক্ত থাকতে পারবেন। আর মনকে ফুরফুরে রাখতে নিজেকে গুছিয়ে রাখার কোনও বিকল্প নেই। খেয়াল রাখুন যেন আপনার ডেস্ক সব সময় ই সুন্দর করে গুছানো থাকে। ব্যাপারটা যদি এমন হয় যে অনেক কাগজ এবং অফিসের আনুষঙ্গিক জিনিস টেবিলে পড়ে আছে, আপনার কাজে মন দিতে সমস্যা হবে। দিনের শুরুতেই আপনার ডেস্ক কে ভালোভাবে গুছিয়ে নিন যেন তাতে কোনও জিনিস এলোমেলোভাবে না পরে থাকে। প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন ছোট ছোট টুল ব্যবহার করতে পারেন যা আপনাকে অরগানাইজড থাকতে সাহায্য করবে। কাজের লিস্ট তৈরি করার জন্য স্টিকি নোট ব্যাবহার করতে পারেন। যদি একটু ভিন্নতা আনতে চান, চেষ্টা করুন বিভিন্ন রঙয়ের স্টিকি নোট ব্যবহার করতে। ভিন্ন ভিন্ন কালারের কম্বিনেশন কাজের জায়গাটাকে একটি চমৎকার সাজ এনে দিবে যা নিঃসন্দেহে আপনার পছন্দ হবে।

৫. মাল্টিটাস্কিং থেকে দূরে থাকুন

বেশিরভাগ মানুষের স্ট্রেস শুরু হয় কাজ সঠিক সময়ে শেষ না করতে পারা থেকে। আর এর পিছনে অন্যতম কারন হচ্ছে একই সাথে অনেক গুলো কাজ করার চেষ্টা করা। আপাতদৃষ্টিতে মনে হতে পারে একসাথে দুইটা বা তিনটা কাজ করতে পারলে সেগুলো দ্রুত শেষ হবে। বাস্তবিকভাবে সেটা আসলে সম্ভব নয়। একসাথে একটার বেশি কাজ করতে গেলে আসলে কোনও কাজই পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে করা হয় না। টাইম ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্বের মাত্র ২.৫% মানুষ মাল্টিটাস্কিং করতে সক্ষম যা খুবই নগণ্য সংখ্যক। অর্থাৎ সব মানুষের এই ক্ষমতা নেই। কারন মানুষের ব্রেইন একসাথে দুটো কাজ করতে সক্ষম নয়। আর এর প্রেক্ষিতে সবগুলো কাজেই কিছু কিছু ভুল থেকে যায়। সেই একই কাজ আবার করতে হয় ভুলগুলো শোধরানোর জন্য। অথচ আপনি যদি কাজগুলো সময় অনুযায়ী ভাগ করে নিতেন, ব্যাপার টা অনেক সহজ হয়ে যেত। একটা করে কাজ শেষ হতো এবং আপনি মানসিক প্রশান্তি লাভ করতেন। তাই মাল্টিটাস্কিং থেকে সব সময় ই দূরে থাকার চেষ্টা করুন।

৬. পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাবার

অফিস স্পেসে বেশিরভাগ মানুষ সবচেয়ে বেশি যে ব্যাপারটা অবহেলা করে তা হচ্ছে, পর্যাপ্ত ও পুষ্টিকর খাবার। অথচ সঠিক সময়ে খাবার গ্রহণ না করলে মেজাজ খিটখিটে হয়ে যেতে পারে। একই সাথে সঠিক খাবার গ্রহণ না করলে তা আপনাকে অলস করে দিতে পারে। আমরা অনেকেই হয়তো জানি, টেক জায়ান্ট গুগল তাদের কর্মীদের জন্য নির্দিষ্ট দূরত্ব পর পর খাবারের ব্যবস্থা রাখে। আর এটা করার কারন হলো তারা জানে কর্মীদের কর্মক্ষম রাখতে হলে তাদের জন্য স্বাস্থ্যসম্মত খাবার প্রয়োজন। আপনার অফিসে হয়তো সে রকম ব্যবস্থা না থাকতে পারে, কিন্তু চাইলেই কিন্তু আপনি স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের ব্যবস্থা নিজেই করে নিতে পারেন। এতে করে শরীর কর্মক্ষম থাকবে আর কাজের প্রতিও মনোযোগ থাকবে। আর আপনার মেজাজও নিয়ন্ত্রণে থাকবে যা স্ট্রেস থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করবে। আর এর পাশাপাশি যথেষ্ট পরিমাণ পানি পান করুন।

৭. পরিমিত বিশ্রাম

একটানা লম্বা সময় কাজ করলে আপনি অনেক বেশি ক্লান্ত হয়ে যাবেন আর নিজেকে অবসাদগ্রস্ত মনে হবে। অনেকেরই একটা ভুল ধারণা আছে যে একটানা কাজ করলে সেটা দ্রুত শেষ হবে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, লম্বা সময় ধরে এক ই কাজ করতে গেলে খুব দ্রুতই তাতে বিরক্তি চলে আসবে। আর তাতে করে কাজটি যে ঠিকভাবে সম্পন্ন হবে না তা নিশ্চিত। তাই কাজের মাঝখানে অবশ্যই বিশ্রাম নিতে হবে। সে জন্য খুব বেশি সময়ের দরকার নাই। সম্ভব হলে প্রতি ২০ মিনিট পর পর ২০ সেকেন্ড এর একটি ব্রেক নিতে পারেন। অথবা প্রয়োজন অনুযায়ী সময় হয়তো একটু বেশিও লাগতে পারে। আর সে ২০ সেকেন্ড সময়ের মাঝে আপনি হালকা ব্যায়াম করতে পারেন বা চোখ বন্ধ করে চোখকে কিছুক্ষন বিশ্রাম দিতে পারেন। যে কোন কাজ সঠিক সময়ে শেষ করতে চাইলে আসলে এর বিকল্প নেই।

মনে রাখতে হবে কাজে স্ট্রেস থাকে মানে সেখানে আপনার পারফরম্যান্স নিশ্চিতভাবেই খারাপ হবে। তাই এ ব্যাপারে যত দ্রুত সচেতন হওয়া যায় ততই ভালো।

 

Are we prepared to face a volatile job market?

643 364 Towhid Khan and Sanjida Chowdhury

The global economic outlook of Bangladesh looks positive due to its high GDP growth rate, political stability, and geopolitical support. Yet even after having a booming economy, millions of youth are struggling with unemployment. According to the World Bank’s 2017 statistics, unemployment rate in our neighbouring countries such as India and China were 3.5 percent and 4.05 percent, respectively, whereas in Bangladesh, it was 11.4 percent. This alarming percentage deserves immediate attention from the government and private sector. It is time we dig deep into this perennial problem and look for solutions to the challenges responsible for creating a jobless generation.

Before opting for solutions, one must understand that the issue is not simply that of creating jobs for young people, but to mobilise their skills in support of sustainable solutions. According to global youth chapter of the UN Sustainable Development Solutions Network, youth across the world are struggling with capacity building, communication, fund raising, and scaling of their efforts. Employers are looking for people with complex and adaptive thinking abilities who can cope with a multifaceted, volatile, and unpredictable job environment. In a modern labour market, youth are expected to recognise the interconnectedness of business communities. The breach between what is taught in class and what skills the recruiters are looking for points out the gaps to work upon. Bangladesh, having a large number of unemployed youth, is struggling with additional challenges as well. The absence of quality education and skilled labour force have been identified as the auxiliary causes of this predicament. In a roundtable discussion jointly organised by The Daily Star and Bangladesh Youth Leadership Center, a number of renowned CEOs of reputed companies had pointed out that the most common factor behind unemployment in Bangladesh is the existing skill gap between employers’ demands and employees’ capabilities. Ironically, while there are so many people looking for suitable jobs, employers lament the scarcity of skilled graduates who can foresee the future leadership trends.

Reflecting the changes in the environment, competencies that will be most valuable to the future leaders appear to be changing. The essential qualities that future leadership entails are adaptability, creativity, ability to think strategically, and openness to ambiguity. Different leadership organisations are working relentlessly to equip graduates with these qualities. A number of institutions have introduced leadership programmes to fill the analytical void by equipping our youth with critical thinking, problem solving, and communication skills. Students learn to think critically about leadership through participating in the experiential learning model of the training programmes. By practicing community services, participants translate their learning into action and complete the curriculum. To enhance the job search abilities of the youth, a number of professional organisations help graduates learn professional skills and place them in different organisations. Understanding the global perspective, prospective organisations prepare eligible workforce who are adjustable to adverse work environment and flexible to team management.

With the aim of having a better society, some Bangladeshi youth have brought solutions to different social challenges. Innovators like Osama Bin Noor, Co-founder of Youth Opportunities, Ayman Sadiq, Founder of 10 Minute School and Zaiba Tahyya, Founder and CEO of Female Empowerment Movement, have proved that leadership is a collective development process spread through networks of people. They experimented with new approaches and combined diverse ideas for implementation. Their aim for collective development not only made them competent enough to fight social odds but also rewarded them with prestigious recognitions.

Compared to the social challenges, only a small number of Bangladeshi innovators have found solutions through democratising leadership. However, it is certainly not enough. We still are limited to organising roundtables, identifying the skill gaps and discussing the discrepancies whereas by 2018 we should already have youth engagement in the policy making process. Our country having already attained the prerequisites to be a developing one, requires policy efforts to equip youth with leadership skills and create scopes for placement at different organisations.

Depending completely on some institution to curb unemployment is not an ideal option. If a student wants to secure a suitable job right after graduation, an interdisciplinary knowledge over business, economics, corporate strategy, and technology is a must. Only a bachelor’s degree in one concentrated curriculum does not make him proficient to cope with the volatile working environment. Along with regular studies, one should opt for online tutorials and professional courses to mitigate the skill gaps prevalent in the 21st Century. A graduate, efficient in data management, design thinking, scrum skills, case solving, blog writing will always remain one step ahead from his less informed contemporaries. Using technological advances, different international universities are offering free courses to students across the globe. These courses are designed to help them learn more than what the textbooks can offer. Labour market in the 21st Century highly recommends students to participate in online and offline skills development courses and be aware of the demands of the future job market.

কিভাবে নিজের একাডেমিক বিষয়ের বাইরে গিয়ে ক্যারিয়ার গড়া যায়?

640 372 Sherazoom Monira Hasib

ক্যারিয়ার গড়ার জন্য কি একাডেমিক ব্যাকগ্রাউন্ড অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ? অনেকের মধ্যে একটা মিথ প্রচলিত আছে আর সেটা হচ্ছে, যে বিষয়ে পড়াশোনা করেছি সে বিষয়ে ক্যারিয়ার না গড়লে আমরা ভালো করতে পারব না। এটা সত্যি যে যার যার একাডেমিক বিষয় সম্পর্কিত ক্যারিয়ার গড়তে পারলে খুব ই ভালো, কারন সে বিষয়ে অনেক গভীর জ্ঞান থাকার সম্ভাবনা আছে।

কিন্তু পৃথিবীতে এমন অনেক উদাহরণ আছে যেখানে মানুষ ক্যারিয়ার গড়ছে যা তার একাডেমিক বিষয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট নয় কিন্তু খুব দ্রুত সফলতাও পাচ্ছে। এর পিছনে কারন হচ্ছে, একাডেমিক বিষয় ছাড়াও যদি কারো অন্যান্য দক্ষতা থাকে, সে সেটা খুব ভালোভাবে কাজে লাগাতে পারে। তবে হুট করে কোন কিছু করা উচিত হবে না। এর জন্য কিছু কিছু ধাপে এগোতে হবে।

চলুন দেখে আসি কি কি ধাপ অনুসরণ করে একাডেমিক বিষয়ের সম্পূর্ণ বাইরে গিয়েও ক্যারিয়ার গড়া যায়।

আপনার পছন্দের জায়গা খুঁজে বের করুনঃ একাডেমিক বিষয়ের বাইরে ক্যারিয়ার গড়তে সবার আগে যেটা প্রয়োজন তা হচ্ছে নিজের পছন্দের বিষয় খুঁজে বের করা। আপনি হয়তো একাডেমিক বিষয় উপভোগ করেন না কিন্তু এমন কোনও বিষয় আছে যেটাতে আপনি ঘন্টার পর ঘন্টা সময় ব্যয় করতে পারেন। আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে সে রকম কিছু। আবশ্যই এমন কিছু পছন্দ করুন যেটাতে আপনি সহজে আরও বেশি দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন।
উদাহরণস্বরূপ ধরা যাক, আপনি প্রায় ই বিভিন্ন ইভেন্ট ম্যানেজ করে থাকেন। হতে পারে সেটা আপনার বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন ইভেন্ট বা পারিবারিক কোন প্রোগ্রাম। তার মানে আপনি একজন ভালো অর্গানাইজার।

সুতরাং আপনি বিভিন্ন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্ম এ সহজেই কাজ শুরু করতে পারেন। তাছাড়াও বিভিন্ন কর্পোরেট অফিসের জন্যও এমন মানবসম্পদ প্রয়োজন যারা সহজেই বিভিন্ন ইভেন্ট এর শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তদারকি করতে পারে। এমনকি নিজে নিজে শুরু করতে পারেন একটি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্ম। ঠিক এক ই কথা অন্যান্য দক্ষতার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

নেটওয়ার্কিং বাড়ানঃ একাডেমিক বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়ুন আর অন্য কোন বিষয় নিয়ে ক্যারিয়ার গড়ুন, আপনার খুব ভালো নেটওয়ার্কিং থাকা জরুরি। হতে পারে আপনি খুব ভালো কোড করতে জানেন আর তাই আপনি কোন স্বনামধন্য সফটওয়্যার ফার্ম এ কাজ করতে চান। সেটার জন্য এখন থেকেই বিভিন্ন কোম্পানির সাথে যোগাযোগ শুরু করে দিন। যদি সম্ভব হয় তাদের বিভিন্ন সফটওয়্যার এর ত্রুটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন এবং কোনও খুঁত থাকলে তাদের কে জানান। এতে করে তারা ধারণা করতে পারবে আপনি আসলে কোন ধরনের কোড বা প্রোগ্রামিং করতে জানেন।

নেটওয়ার্কিং করার জন্য সব চেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যারিয়ার ক্লাব এ যোগ দেয়া। সেখানে আপনি খুব সহজে আপনার ক্যাম্পাস এর সিনিয়র, যারা খুব ভালো জায়গায় কাজ করছে, তাদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে পারবেন। তাদের কে আপনার পছন্দের বিষয় সম্পর্কে জানান এবং আপনি কিভাবে সেখানে কাজ করতে পারেন তা নিয়ে আলোচনা করুন। এতে করে পড়াশোনা শেষ করার আগেই আপনার কাজের ক্ষেত্র তৈরি থাকবে।

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চাকুরির বিজ্ঞপ্তি বিশ্লেষণঃ আপনি যে বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়তে আগ্রহী, ঠিক সে বিষয় টা নিয়ে যে ধরনের চাকরির বিজ্ঞাপন পাবেন সেগুলো একটু ভালো করে বিশ্লেষন করুন। অনেক ক্ষেত্রেই দেখতে পাবেন দক্ষতা থাকলে একাডেমিক বিষয় শিথিলযোগ্য। অর্থাৎ সরাসরি আপনার কোনও ডিগ্রি না থাকলেও সেখানে কাজ করার সুযোগ আছে। একটু ভালো করে খেয়াল করলে দেখতে পাবেন তারা বাড়তি কিছু যোগ্যতা চাচ্ছে যা হয়তো সবার নেই। আর ঠিক এখানেই আপনার এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে।

সে সকল বিষয় নিয়ে জানা শুরু করে দিন। এখনকার যুগে নতুন বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করা মোটেও কঠিন কিছু না। অনেক ফ্রি রিসোর্স রয়েছে যেখানে আপনি খুব সহজেই কঠিন কঠিন বিষয়গুলো আয়ত্ত করে ফেলতে পারবেন।

বিভিন্ন প্রফেশনাল ওয়ার্কশপে অংশগ্রহণ করুনঃ যেহুতু আপনি সরাসরি আপনার একাডেমিক বিষয়ে কোনও কিছু করতে আগ্রহী নন, তাই অন্যান্য বিষয়ে ক্যারিয়ার সম্পর্কিত জ্ঞানের জন্য বিভিন্ন প্রফেশনাল ওয়ার্কশপ এ যোগ দিতে পারেন। আর এ ক্ষেত্রে সব চেয়ে ভালো হয় যদি আপনি বিওয়াইএলসি’র অফিস অফ প্রফেশনাল ডেভেলাপমেন্ট (ওপিডি) এর দুই দিন ব্যাপী ওয়ার্কশপ এ অংশগ্রহণ করেন।

এখানে সিভি রাইটিং থেকে শুরু করে কিভাবে ইন্টারভিউ ফেস করবেন, নেগোশিয়েট করবেন ইত্যাদি জানতে পারবেন। এছাড়াও থাকবে ডেমো ইন্টারভিউ সেশন, যেখান থেকে আপনি ধারণা নিতে পারবেন কিভাবে ইন্টারভিউ এর প্রশ্নের উত্তর দেয়া যায়। ওপিডি ছাড়াও আরও অন্যান্যা ওয়ার্কশপে আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী অংশগ্রহণ করতে পারেন যা আপনার জ্ঞানের পরিধি নিঃসন্দেহে অনেক বাড়াবে।

শুরু করে দিন নিজের উদ্যোগঃ যে বিষয়ে ই পড়াশোনা করেন না কেন, চাকরি ই করতে হবে ব্যাপার টা এমন নয়। বরং আপনার হাত ধরেই সৃষ্টি হতে পারে নতুন কর্মসংস্থান। নিজেকে গড়ে তুলতে পারেন একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে। একাডেমিক বিষয়ের বাইরে যদি আপনার এমন কোন আইডিয়া থাকে যেখানে অনেক সামনে এগোনো সম্ভব, সেটা নিয়েই শুরু হতে পারে আপনার উদ্যোক্তা জীবন।

তবে চেষ্টা করতে হবে এমন কিছু নিয়ে উদ্যোগ নেয়া যেটা আর সবার চেয়ে আলাদা। তবে আর আপনার চাকরি করার কোন প্রয়োজন হবে না।

উপোরক্ত বিষয়গুলো ভালোভাবে অনুসরণ করে এখন থেকেই শুরু করুন আপনার স্বপ্নযাত্রা।

রেজিউমিতে যে ৮ টি ভুল কখনোই নয়

1024 500 Jamia Rahman Khan Tisa

রেজিউমি । চাকুরিদাতার সামনে নিজেকে উপস্থাপনের প্রথম ধাপ। এই ধাপটি উতরে যাওয়াটা কিছুটা কঠিন। কেনোনা নিয়োগকর্তারা বহু যাচাই বাছাইয়ের পর তাদের পছন্দসই রেজিউমির মালিককেই ইন্টারভিউয়ে ডাকে। সুতরাং রেজিউমিতে কোনো ভুল থাকা কখনোই কাম্য নয়। কিন্তু ছোটোখাটো কিছু ভুল আমরা রেজিউমি লিখতে গিয়ে প্রায়ই করে ফেলি। ছোটোখাটো মনে হলেও সেই ভুল কিন্তু মারাত্মক। একটুখানি সচেতন হলেই এইসব ভুল কাটিয়ে ওঠা সম্ভব। রেজিউমি বানাতে যেয়ে আমরা যেসব ভুল অহরহই করে থাকি সেগুলো নিয়েই সাজানো হয়েছে এই আর্টিকেলটি।

টাইপিং এবং ব্যাকরণগত ভুল
এটি সবচেয়ে কমন ভুল। প্রায় সবারই হয়ে থাকে। রেজিউমিতে একটা টাইপিং মিসটেক আপনার রেজিউমিটি না পড়ার সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দেয় অনেকাংশে। ব্যাকরণগত ভুল আপনার সম্পর্কে নিয়োগকর্তারর মনে খুব বাজে একটা ধারণা তৈরি করে। অনেকসময় দেখা যায় তিনি বিরক্ত হয়ে রেজিউমিটি পুরোপুরি পড়েনই না। অথচ কয়েকটা রিভিশন কিন্তু আপনাকে এই ভুলটি থেকে বাঁচিয়ে দিতে পারে।

ডেডলাইনের আগের দিন রেজিউমি বানানো
এই কাজটি কখনোই করা উচিত নয়। কেননা তাড়াহুড়াতে যেমন অনেক ছোটোখাটো ভুল আমাদের চোখ এড়িয়ে যায় তেমনি রেজিউমিটি সঠিক না হবার সম্ভাবনা ও খুব বেশি। একটু সময় হাতে নিয়ে কাজটি করলে অনেক সমস্যার হাত থেকে বেঁচে যাওয়া যায়। বারবার রিভিশন দেওয়ারও সুযোগ থাকে।

অনির্দিষ্ট ভাবে কিছু লেখা
আমরা বেশিরভাগক্ষেত্রেই অনির্দিষ্ট ভাবে বিভিন্ন তথ্য দেই। এতে করে নিয়োগদাতা আপনার সম্পর্কে একটা আবছা ধারণা পান। এক্ষেত্রে যাই লিখুননা কেনো তা নির্দিষ্টভাবে লেখার চেষ্টা করুন। যেমন : “আগে আমি এনজিও তে কাজ করেছি।” এটা না লিখে এনজিওতে আপনি কি কাজ করেছেন সেটা লিখুন। এতে করে আপনার কাজ এবং দক্ষতা সম্পর্কে ভালো ধারণা পাওয়া পাওয়া যাবে।

একই রেজিউমি সব জায়গায় চালিয়ে দেওয়া
এই ভুলটা সবচেয়ে বেশি করা হয়। যে পদে আবেদন করছেন তার চাহিদা অনুযায়ী রেজিউমি সাজান। আপনি কেনো সেই পদের যোগ্য তা রেজিউমিতে তুলে ধরুন। মনে রাখবেন সব জব অফারে একই ধরণের যোগ্যতা যেহেতু চাওয়া হয়না তাই একই রেজিউমিও সব আবেদনের জন্য উপযুক্ত নয়।

গৎবাঁধা অবজেক্টিভ
এটাও একধরণের ভুলই বটে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমরা যে পদে আবেদন করছি তার সাথে জব অবজেক্টিভের কোনো মিল থাকেনা। অবজেক্টিভ লেখার সময় কৌশলী হোন। ঠিক কি ধরণের কাজ করতে চান তা লিখুন। খুব নির্দিষ্ট করে এমন ভাবে অবজেক্টিভ লিখুন যেনো তা যে পদে আবেদন করছেন তার সাথে সংগতিপূর্ণ হয়।

মিথ্যা তথ্য দেওয়া
অনেকে নিয়োগকর্তার মনোযোগ আকর্ষণের জন্য অনেক স্কিল বা অভিজ্ঞতা বাড়িয়ে লেখেন।
এই কাজটিকে শুধু ভুল বললে ভুল হবে। এটা অন্যায়। এধরণের কাজ থেকে বিরত থাকুন। তথ্য প্রদানের বেলায় সৎ থাকুন।

ইনফরমাল ইমেইল অ্যাড্রেস
এটাও একটা কমন দৃশ্য। অবুঝ বালিকা, ছোটা ডন কিংবা দুঃখবিলাসী এই ধরণের নাম যেন আপনার ইমেইল অ্যাড্রেসে না থাকে। এটা যেমন হাস্যকর তেমনি ইনফরমাল বটে। নিয়োগকর্তার মনে আপনার সম্পর্কে বাজে ইম্প্রেশন তৈরী করতে আপনার একটি ইনফরমাল ইমেইল অ্যাড্রেস কম যথেষ্ট নয়। নিজের নাম দিয়ে প্রফেশনাল ইমেইল আইডি খুলুন।

বিশ্বস্ত কিংবা গোপন কোনো তথ্য রেজিউমিতে দেওয়া
দেখা গেলো আপনি আপনার দক্ষতা তুলে ধরার জন্য পূর্বতন প্রতিষ্ঠানের কোনো গোপন বা বিশ্বস্ত তথ্য রেজিউমিতে লিখলেন। এতে করে কিন্তু আপনার খারাপ ইমেজই ফুটে উঠছে। এই কাজটিও পরিহার করুন।

ছবিসূত্রঃ Diverse-Edge-Recruting

Seo wordpress plugin by www.seowizard.org.