Personal Journey

Types of pandemic productivity

1920 1080 Zarin Khushnud

“You better learn the ways of spending your time productively from your uncle’s son!” I heard my mom bellow at my brother from the other end of the house as I sat down to write my piece on

TYPES OF PEOPLE IN QUARANTINE

Months and months of isolation with no specific time frame has impacted individuals in one way or the other. While some might find it exceptionally strenuous to deal with the grief or fear of losing a loved one, others may as well feel disgruntled trying to cope up with uninvited mood swings and dilemmas. However, after spending a prolonged amount of time under lockdown, it is possible to categorize the valuable in-house residents of this overwhelming pandemic market into a few distinct niches, as outlined below. 

The hopeful(s)


The true optimists, the ones who believe that there is light at the end of the tunnel and this too, shall pass. The hopeful(s) will usually be found comforting others and providing them with shoulders to rant on. We can surely rely on them for a heartwarming conversation or some jokes to hold onto our peace of mind in such trying times. 

 

The contemplators 


The contemplators are quite an intriguing group of individuals. We will usually find them gazing dreamily into space, foreseeing what the virus has in store for us. They are well aware of the economic, financial, and social consequences of a post-pandemic world and are always available to provide worthwhile insights and advice on such matters.

The all-nighters 


The all-nighters have skilfully transformed themselves into nocturnal species over the last few months. Going to sleep at 4 am, being fully energized after a web series spree, and waking up gloomily twelve hours later is the new normal for them. For a quick fun trick, we can try abruptly asking them to identify the day and date and enjoy staring at their confused faces! 

 

The nonchalant crew 


Calm, composed, and unconcerned about the pandemic, the world, and all that it contains. They are generally a pleasure to watch munching on snacks, reading a novel, or dwelling on satisfying memories instead of tracking disturbing news. They live by the motto ‘whatever is ought to happen, shall happen’ and there are no added benefits stressing over it. 

The achievers


The achievers have already mesmerized us by their involvement in a plethora of activities. Be it showcasing their hidden cooking skills, to the completion of numerous online courses, or their noble initiatives undertaken to help those in need. They have really made the best use of extra time and energy.  

Generally speaking, the current pattern indicates that one will fall under any one or two of the categories or make transitions between all of them depending on their mood, personality preference, or day-wise schedules. However, it is vital to remember that all versions of you existing in the pandemic are equally important and special. It is completely acceptable to not be able to gather the will to wake up from bed one morning and feel jaunty enough to outgrow everyone else on another. As vital as it is to accept reality, it is as well significant enough to welcome and support our inner urges and complexes. As long as we decide to hold our beliefs, values, and spirits strong in addition to keeping our sanities checked, everything else shall fall into place in no time.

Maa, we’re in the middle of a global pandemic, not a productivity contest!” I squealed back as I typed the final words for my piece and ran off to give her a hug and clear her views on certain lockdown stigmas.

Maximizing on online learning

1920 1080 Nafisa Naomi

As a teacher who has been in this profession for nearly a decade, the first thing that comes to mind when I hear the word ‘classroom’ is a room full of thirty odd children, bubbling with unbridled energy, the usual cacophony, the torrent of questions that come at you even before you say a word, and having to say “Quiet!” loudly enough to be heard across the next three rooms just to draw attention. Those are only a few ‘hacks’ I used to do to make the best of my 40 minutes in a traditional classroom. At present, with the major portion of the education industry shifting to the online platforms, students are spending a big chunk of their day attending zoom sessions and turning in assignments. As an online learner who invests time into one or more online courses, you owe it to yourself to make the most out of your learning experience. This blog post is my take on how you can get the best out of your journey of online education.

Appreciate online learning practices


A core benefit of online learning is the amount of time it saves for the learner, time which would have otherwise been spent in a traditional classroom as well as in the commute to it. It therefore saves a good amount of time and money. Utilize that time to gather your learnings with the course and to review materials previously covered. Consistent practice and repeated revisions will help you internalize the concepts better.

Dedicate a study space


Whether it is the corner table of a local cafe or the study table in your room, a dedicated study space makes a major difference in your learning and overall productivity. Make sure it is calm, well lit and comfortable, devoid of all things that may distract you and has everything you might need within reach. Being around your study space at a specific time of the day will direct your mind towards studying and achieving your daily goals for the course.

Identify learning objectives


Breaking down your course into daily bite sized goals creates a clear and defined road map for you to follow. This helps you set your mind in a direction in which it is headed and helps you to visualize the path ahead. Breaking it down into smaller targets as you progress also makes it less overwhelming altogether. The idea is to pick a small chunk of the course, ace it first, and then move on to the next.

Time management


Strong time management skills is an essential tool when it comes to achieving study goals. To ensure staying on track, always plan ahead and have the course necessities clearly chalked out while keeping an eye on assignments and due dates. Do not procrastinate and leave things for until right before the deadline. This is an easy trap to fall into for many (including yours truly). It not only becomes increasingly overwhelming as the deadline approaches, it also has a knock-on effect on the upcoming phases of the course, leaving an overall impact on the progress of the course. Keep a calendar handy with all the assignment due dates marked. This will help you manage study time effectively.

Self Discipline

This is a key determining factor of the pace and the quality of the progress you make in and through the course. That makes it a great opportunity to practice and build on your self discipline. Make it a point to not feel discouraged if you go off track for a bit. Leave some hours on your timeline to take a break and relax before you hop back on with some renewed energy.

Frequent contact with trainer

Unlike a traditional classroom where you might have to wait your turn to talk to the teacher, online courses enable the instructor to be much more accessible. Between discussion forums, emails, and text messages, it is easy to ask questions to clarify your concepts further or for help when you are facing any difficulties. This way you get a better understanding of the course in its entirety. The constant feedback from the instructor from time to time helps you stay on track and head in the right direction.

Virtual participation

Ask that question in a zoom call or post that opinion on a discussion board. Do not hesitate or second guess yourself. It is common to fear that what you say might not induce a lot of response from or draw the attention of the rest of the class, but that does not always need to be the goal. It is an agreed upon fact that online learning can make you feel isolated and learning in isolation can be very difficult. Active participation in a virtual class discussion helps feel involved and is a healthy reminder of the fact that there are others who have embarked on the same journey as you.

Staying motivated and regaining momentum

When it comes to online learning, if you go slightly off track or fall behind on schedule, it is very easy to lose the drive you had at the beginning. A great way around it is to simply talk about it. Share your learning experience with others whether it’s your course mate or your family. Talk about what you learned at the dinner table. Explain a new concept you picked up to someone who has no knowledge of the subject matter. This will serve as a constant reminder of the progress you have made. It will help you to collaborate with other learners of the course and thereby regain your original momentum.

Source: https://elearningindustry.com/get-the-most-out-of-your-online-course-15-ways

Illumination or Inferno

1920 1080 Lidia Clodia Gomes

“Understanding suffering is the way to salvation because once you understand it, you have compassion, and the next thing you know, you are free.”

  • Jim Carrey, actor, producer, and writer

Knowing myself, it was not very hard to cope with the initial confinement. I could get up normally, there was no rush to get to the office, and I knew my loved ones were safe. Eventually, that essence of functionality began to waver; I became either obsessed with work or demotivated as time started to pass slowly. The more I tried to grasp the situation, the more it hit me. Nature does not want us here. We are killing the earth. We are abusing it. The thoughts came and went.

Then, I began to see news  of animals roaming around freely and the ozone layer mending itself. It seemed that all the earth needed was a little timeout from the human race. Perhaps you too should consider a timeout, for yourself, and the planet you call home.

This is a distressing time for all of us, and being positive about life is a little difficult. We can only move forward now by keeping ourselves alive and well. Finding positivity is crucial right now to survive. In one of the webinars organized by Bangladesh Youth Leadership Center, a speaker talked about how we should always find positivity in this trying time.

We can communicate positivity. Through positivity, we can also convey hope and offer solutions to persisting individual, social, or national problems. It can be just a small text to someone close, a call to a friend whom you haven’t reached out in many years, or greeting a neighbor on social media.These little tokens of appreciation can go a long way, and help people to recover themselves from the negativity surrounding us at present.

We can offer help to others. Many organizations have been distributing food to low-income communities to alleviate their suffering during this time. There are people who are feeding street animals so that they are not left behind to die. We all have limitations in our positions, but we can help by donating a small amount for the cause. Because little drops of water make a mighty ocean. Or we can help those who are living close to us, our neighbors, or our caretakers.

We have to have a positive mindset to navigate these uncharted waters. Engage with work and take some time out for yourself. Do something that makes you happy. Spend time with your family and get that game board that has been collecting dust all these years. If you are far away from your loved ones, have a chat at least once a day. You cannot make others happy if you do not exercise it yourself.

How can we transform the negative feelings of isolation into positive feelings of hope? In a session on BYLC’s Career Conversations, Zara Mahbub, CEO of Kazi IT Center Ltd., shared a beautiful outlook on staying positive through the very word QUARANTINE.

Q – Quality time with your family. Turn every activity into a fun group activity with your family members. In the process, younger ones in the family can learn responsibility and come out of this quarantine as a stronger individual.

U – Utilize every minute of the quarantine on positive actions. Plan and organize your life as you would like to see it now and after the quarantine is over. Think of this time period as a rehearsal before the final show.

A – Align your thoughts and perspective. You can do this by recalibrating, exercising, meditating, and praying. This is a great time to shift gears and refocus on our spiritual side.

R – Reach out to others in need. A small contribution from you can make a huge difference in someone else’s life. 

A – Ask others how they are. Spend some time connecting with your close and extended family and friends. It doesn’t matter when you last spoke to them; drop a message now, and reconnect with them. 

N – Need vs want. This is a good time to evaluate if we can survive without the things we want and instead focus on the things that we need. The prime question to ask ourselves is whether our ‘wants’ are necessary for a happier and healthier life. 

T – Take time out. If you are not working from home or have online classes, don’t feel guilty to do the things that you have always wanted to indulge in. You can sleep in, binge watch your favorite show, or reorganize your personal space.  

I – Identify Important things in your life. Sit back and think about what really matters.

N – Note down the important things in life. Write down your goals and how you plan to achieve them with a checkbox to each action item. Give yourself a timeline. 

E – Evolve into a better version of yourself. Be someone who cares for themselves and for their loved ones.  Most importantly, evolve into a being that truly loves this planet, its creatures, and its blessings.

You can decide what this life will mean to you and the people around you. You are an idea that makes up your presence. You are all the roles you play in this life. How you choose to deal with this time will ensure the result that comes afterwards.

Developing the habit of daily learning

1920 1080 Nafisa Naomi

At a public event in New York City, Sara Blakely, founder of the billion-dollar hosiery and apparel company, the Spanx, talked about a different dinner table experience while growing up. “My dad used to ask my brother and me at the dinner table what we had failed at that week,” she told the audience. “I can remember coming home from school and saying, ‘Dad, I tried out for this and I was horrible!’ and he would high-five me and say, ‘Way to go!’ If I didn’t have something that I had failed at, he would actually be disappointed.” This dinner time tradition taught her to look at failure differently. “Failure for me became about not trying at all and hence not learning, instead of the outcome.”

Learning, I believe, works the same way. Whether it’s a new language or skill you are trying to pick up or a concept you are trying to grasp, consistency and regularity is key. When it comes to online education, growing and sustaining the habit of learning something daily is crucial to personal growth and progress. While there is no prescriptive formula, this piece is my attempt at cracking the code of building the habit of learning daily. 

Set realistic and attainable goals and a timeline to attain them

Envision your goal. If it’s an online program you signed up for, picture in detail how completing the program would change you on a personal level, the new knowledge it would bring, or the opportunities it might open up for you. Write the vision down and set a tentative timeline to achieve it. Then break the vision down into smaller, more realistic goals, and slot your timeline into chunks such as weeks, days, or hours in which you can attain those targets. Keep in mind that you will not attain them the way you think you will at the beginning and the course of your learning therefore might change with time. 

Keep it simple

We often tend to overestimate what we can achieve within a given time. Designing a simple plan will therefore be a more effective approach to learning daily. For example, instead of trying to finish an entire module in a day, try to finish reading one supplementary article or one video tutorial, and try to get deeper insight of the content. Take your learning in small bites. Focus on one thing at a time, get it right and then move on to the next part.

Embed learning in your daily routine and act on your plan

Picturing your goal and hatching a plan to attain it is only half the battle. The other half needs you to actually follow through and get to the learning stage. Allot a certain number of hours in your day to spend on your online courses. Whether it’s a lecture video or an article you need to read, make sure you learn something new every day. 

Invest time to practice and brush up on previously learned material

A significant advantage of online learning is that you can access and review any material at any given time. It is important to review the material you have learned at an earlier point in the course as you progress to the later parts. This gives a stronger sense of what you have learned and allows you to assimilate and apply everything you have learned so far. It thus gives you a stronger footing in accepting what lies ahead in the course path.

Share your learning with others

Sharing your daily goals with others in detail and talking about what you have done to achieve them, creates a sense of accountability and commitment toward achieving them. Most learners would agree that learning alone is difficult. Collaborative learning is far more productive than learning alone because it’s fun and allows you to create and maintain the momentum.

Reflection and continuous redesign

Having mapped out every learning phase in your plan allows you to reassess and rethink any learning approach at any point during the course, lest it did not prove to be as productive as you hoped. For example, if you notice that you have broken your pattern of learning and missed a number of days in a row, then break it down into something smaller and more manageable. This keeps you from feeling discouraged and giving it up all together. Your plan will help you pick up from right where you left off.

It may be safe to say that when it comes to online learning, most of us have signed up for a course with a lot of exuberance and enthusiasm, but very few have been able to keep that up and complete the course. It is only human nature to set big goals for ourselves and consequently bite more than we can chew. The idea is not to learn and know big things overnight, but to learn and slowly excel at small things every day.

Effective communication: improving our social skills

7680 4320 Tangila Binte Thuhid

Social skills are essential in both our professional and personal relationships. Although it is not a skill that is usually taught in schools or colleges, it is essential to learn and cultivate for our own well-being. 

Before we start practicing social skills, we have to first understand what the term entails. Generally, social skills are recognized as interpersonal or soft skills, which involves verbal as well as non-verbal communication styles. Verbal communication involves spoken language, while nonverbal communication tilts toward body language, facial expressions, and eye contact. Strong social skills can also help to build and maintain successful relationships, both professionally and personally.

For developing strong adaptability traits in a public sphere, there are several recommended ways that can aid in developing social skills.

Being productive and taking initiatives

This does not mean dominating a conversation but being well-prepared, engaging more with people, and taking ownership.

Accepting feedback

 Generally, people are hesitant about receiving feedback. However, it can be useful to ask friends, mentors, or supervisors for honest feedback to improve oneself. These feedback can be translated into achieving personal and professional goals in the long run.

Prioritize how rather than what to say

You might have a brilliant idea, but no one at your workplace will be on board if you do not properly communicate it. Body language plays a role here as well, as research says, 97% of our communication is unspoken. Improving body language can increase acceptance of a message or idea.

Speak clearly

Do not mumble when conversing with anyone. Train yourself to speak slowly and coherently, so that everyone involved in the conversation can understand your point.

Practice actively listening

There are few tricks to improve active listening skills. Make eye contact with the person with whom you are having a conversation. Reiterate your understanding. Acknowledge their feelings and underscore what you have understood from the conversation. People need to be made to realize that they are being heard, and active listening is the key to create that desired comfort zone for people to speak up. 

Be respectful of people’s choices and personal space 

A simple ‘thank you’ can go a long way. Having good manners and mutual respect is an essential social skill. Giving personal space and treating people the way they want to be treated will help build your social skill in an interpersonal manner.

Be empathetic and build a connection

 Show respect and appreciation of other’s work and achievements. A good reminder is to put yourself in other people’s shoes and understand their point of view before taking any impulsive actions.

Social skills are the core skills you need to learn and practice to thrive in every relationship, whether it be personal or professional. The best way to develop these skills is to put your learnings into practice. The more you practice, the better you will be at it.

                                                                         

বিওয়াইএলসি ইয়ুথ লিডারশিপ সামিট ২০১৮: আমার প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি

1000 668 Sherazoom Monira Hasib

বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশিপ সেন্টার (বিওয়াইএলসি)’র আয়োজনে শেষ হয়ে গেল পঞ্চম ইয়ুথ লিডারশিপ সামিট। যেহুতু বিওয়াইএলসি’তে থাকা অবস্থায় আমার জন্য এটাই প্রথম সামিট, শুরু থেকেই সামিট ঘিরে ছিল অন্যরকম প্রত্যাশা। সারা দেশ থেকে বাছাই করা ৪০০ তরুণ আসবে ইয়ুথ ম্যানিফেস্টো তৈরি করতে যা ছিল এক অন্যরকম আনন্দের ব্যাপার। তাই অপেক্ষাটা ছিল বেশ উত্তেজনাপূর্ন।

২৭ সেপ্টেম্বর সকাল থেকেই শুরু হয়ে যায় সামিটের আনুষ্ঠানিকতা। বিওয়াইএলসি’র সবাই পূর্বঘোষিত সময় অনুযায়ী ৭ টার মধ্যেই উপস্থিত হয়ে যায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে। আর তার কিছুক্ষন পরেই আসতে শুরু করে সামিট ডেলিগেটরা। সুশৃঙ্খল ও সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে তারা শুরু করে রেজিস্ট্রেশন। দীর্ঘ সারি থাকা সত্ত্বেও তাদের মধ্যে ছিল নতুন কিছু শেখার উৎসাহ। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই রেজিস্ট্রেশন শেষ করে সবাই প্রস্তুতি নেয় প্রথম সেশনের জন্য।

প্রথম দিনের অভিজ্ঞতা

সকাল ৯ টায় জাতীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠে ইয়ুথ লিডারশিপ সামিট ২০১৮’র। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন বিওয়াইএলসি’র প্রতিষ্ঠাতা ও প্রেসিডেন্ট ইজাজ আহমেদ। এ সময় তিনি দীর্ঘ দশ বছর ধরে তরুণদের নেতৃত্ব প্রশিক্ষণের বিভিন্ন অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। এর পর পর ই কথা বলেন নাগরিক টিভির সিইও আব্দুন নূর তুষার। তিনি সামিট ডেলিগেটদের উদ্দেশ্যে বলেন, “আমরা যে ধরনের বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখতাম বাংলাদেশটা ঠিক তেমনই হয়েছে।” তিনি তরুণদের কে আরও বেশি দেশের কল্যাণে কাজ করার আহ্বান জানান। সামিট ডেলিগেটদের উদ্দেশ্যে আরও কথা বলেন, আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্ব ড. গওহর রিজভী। তিনি তরুণদের পরামর্শ দেন পারস্পরিক মত বিনিময় করতে যার মাধ্যমে তাদের জানার পরিধি বাড়বে। এই ব্যাপারটা আমাদের সবার জন্যই প্রযোজ্য। হয়তো আমরা বিভিন্ন বিষয়ে একমত নাও হতে পারি, কিন্তু পরস্পরের মতামতের ব্যাপারে সম্মান প্রদর্শন করে যুক্তির মাধ্যমে আসলে সুন্দর একটা সিদ্ধান্তে আসা সম্ভব। প্রত্যকের যে একটা আলাদা মতামত থাকতে পারে সেটার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করাটাও প্রয়োজনীয়।

প্রথম সেশনের পরে ছিল চা বিরতি আর তার পরেই বহু আকাঙ্ক্ষিত প্রফেসর আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ স্যারের সেশন, যেখানে তিনি কথা বলেছেন তরুণদের বক্তব্য কেন গুরুত্বপূর্ন সে বিষয়ে। সব সময়ের মতই তাঁর মনোমুগ্ধকর বক্তব্য দিয়ে তরুণদের আকৃষ্ট করে রাখেন। বিভিন্ন গল্পে গল্পে তিনি তুলে ধরেন কিভাবে প্রাত্যাহিক জীবনের নানা সমস্যা সমাধানে নেতৃত্ব দিয়ে সমাধানের লক্ষ্যে কাজ করা যায়। এ সময় তিনি বলেন, “নেতা হতে হলে সবার আগে বিশ্বাসযোগ্য হতে হবে। এমন একজন যার নির্দেশ শোনামাত্রই সবাই তা মেনে নেয়।” আমরা যদি বর্তমান পরিস্থিতির সাথে একটু তুলনা করি, দেখতে পাব বিশ্বাসযোগ্যতা আসলে সবাই অর্জন করতে পারে না। আর যাদের বিশ্বাসযোগ্যতা আছে আমরা কিন্তু সহজেই তাদের যে কোনও পরামর্শ মেনে নিচ্ছি। এর পিছনে কারণ হচ্ছে বিশ্বাসযোগ্য একজন ব্যক্তি কখনও না জেনে কোনও ব্যাপারে পরামর্শ বা নির্দেশ দেন না। আমাদের প্রায় সবার মধ্যে একটা ব্যপার কাজ করে, আর সেটা হলো যে কোনও সমস্যায় কর্তৃপক্ষ এগিয়ে না আসলে আমরা হয়তো সমস্যার সমাধান করতে পারব না। কিন্তু সামান্য উদ্যোগী হলে যে খুব সহজেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে সেটা আমরা ভাবি না। এ ব্যাপারে প্রফেসর আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ জোর দেন এবং সবাইকে যার যার জায়গা থেকে সঠিক কাজটি করার আহ্বান জানান।

পরবর্তীতে আইস ব্রেকিং ও নেটয়ার্কিংসহ বেশ কিছু সেশন ছিল। প্রথম দিনের শেষ সেশনটি ছিল বিওয়াইএলসি প্রেসিডেন্ট ইজাজ আহমেদের। এ সময় তিনি কঠিন পরিস্থিতে পড়লেও কিভাবে নেতৃত্ব চর্চা করা যায় সে ব্যাপারে বক্তব্য দেন।

প্রথম দিনের শিক্ষা ছিল সব সময় কেউ না কেউ এসে কাজটা করে দিবে এটা না ভেবে বরং নিজে একটু উদ্যোগী হলে খুব সহজেই সমস্যা সমাধান হয়ে যায়। আর কোনও কিছুতে নিজে নেতৃত্ব দিতে চাইলে আগে বিশ্বাসযোগ্য হতে হবে। অথবা আমাদের এমন কাউকেই নেতা নির্বাচন করা উচিত যাকে প্রশ্নাতীতভাবে বিশ্বাস করা যায়।

দ্বিতীয় দিনের অভিজ্ঞতা

দ্বিতীয় দিনের শুরুটা হয় প্রফেশনাল ডেভেলাপমেন্ট সেশনের মধ্য দিয়ে যেখানে বিওয়াইএলসি অফিস অফ প্রফেশনাল ডেভেলাপমেন্ট এর ডেপুটি ম্যানেজার ফারাহ চৌধুরী তরুণরা নিজের মতামত কিভাবে সঠিকভাবে তুলে ধরতে পারে সে ব্যাপারে পরামর্শ দেন। তিনি আত্মবিশ্বাসের সাথে এবং গুছিয়ে নিজের যে কোন বক্তব্য উপস্থাপনের পরামর্শ দেন। অনেকেই হয়তো নিজের মতামত কিভাবে তুলে ধরতে হবে বা কোন উপায়ে তা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে দিবে তা বুঝতে পারে না। আমার নিজের ক্ষেত্রেও যে ব্যাপারটি অনেকবার ঘটেছে। এই সেশনটি আসলে মনে যে ভয়গুলো ছিল সেগুলো দূর করতে সহায়তা করেছে।

দিতীয় দিনের চা বিরতির পর দুটি ভিন্ন সময়ে মোট চারটি সেশন ছিল। ডেলিগেটদের সামনে সুযোগ ছিল প্রথম ভাগের ‘পরিবর্তনশীল বিশ্বের জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষা’ ও ‘সার্বিক অন্তর্ভুক্তিকরন’ থেকে একটি এবং দ্বিতীয় ভাগের ‘ভবিষ্যৎ কর্মসংস্থান’ ও ‘তরুণদের জন্য নিরাপদ স্থান’ এ দুটি থেকে একটি করে মোট দুটি সেশন বেছে নেয়ার। প্রতিটি সেশনে আলোচনায় অংশ নেন বিষয় সংশ্লিষ্ট অভিজ্ঞ ব্যক্তিবর্গ।

এই সেশনগুলোর মধ্য থেকে আমার থাকার সুযোগ হয়েছিল ‘পরিবর্তনশীল বিশ্বের জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষা’ ও ‘তরুণদের জন্য নিরাপদ স্থান’ এ দুটি সেশনে। প্রথম সেশনটিতে কথা বলেন, টিচ ফর বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা মায়মুনা আহমেদ, ১০ মিনিট স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা আয়মান সাদিক, ব্র্যাক ইন্সটিটিউট অফ এডুকেশনাল ডেভেলাপমেন্ট (ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়) এর প্রভাষক শামনাজ আরিফিন। সেশনটি সঞ্চালনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের সহকারী অধ্যাপক হুমায়রা আহমেদ। বক্তারা সবাই একমত পোষণ করেন যে আমাদের গতানুগতিক শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। একই সাথে তারা গুরুত্ব দেন শিক্ষকদের জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার উপর। ১০ মিনিট স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা আয়মান সাদিক বলেন, “ডিজিটাল শিক্ষা ব্যবস্থা আমাদের দেশের তরুণদের জন্য এক বিশাল সুযোগ তাদের নিজেদের দক্ষতা বৃদ্ধি করার জন্য।” এই সুযোগটি আসলে আমাদের আরও বেশি করে কিভাবে কাজে লাগানো যায় তা ভেবে দেখা জরুরি। নিজের স্মার্টফোনটা কাজে লাগিয়েও এখন অনেক কিছু শিখে ফেলা সম্ভব। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হচ্ছে অনেক বেশি ফ্রি রিসোর্স রয়েছে যা আমরা দক্ষতা বৃদ্ধিতে কাজে লাগাতে পারি। একই সাথে নিজে থেকে দক্ষতা বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়াটাও জরুরি। আমাদের প্রাত্যাহিক জীবনের কিছু সময় বাঁচিয়েই আসলে আমরা দক্ষতা বাড়াতে পারি। এমনকি সেটার জন্য নির্ধারিত কোন সময় মেনে চলা জরুরি নয়। বরং আমাদের সুবিধাজনক সময়েই অনেক কিছু শিখে ফেলা সম্ভব।

দিনের অন্য সেশন যেটিতে ছিলাম তা হচ্ছে তরুণদের জন্য নিরাপদ স্থান। এই সেশনে কথা বলেন, নিরাপদ সড়ক চাই এর প্রতিষ্ঠাতা চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, দ্যা লিগ্যাল সার্কেলের প্রতিষ্ঠাতা আনীতা গাজী ইসলাম, এবং একশন এইড এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবীর। এই সেশনটি সঞ্চালনা করেন বিওয়াইএলসি গভর্নর বডির সদস্য ও ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর পিস এন্ড জাস্টিস এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর মানজুর হাসান ওবিই। তরুণদের জন্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরনে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়ার পরামর্শ দেয়ার পাশাপাশি তারা সবাইকে আইন মেনে চলার পরামর্শ দেন। সামিট ডেলিগেটরাও স্বীকার করে যে সবাই ই বিভিন্ন সময়ে আইন ভঙ্গ করি। অথচ আমাদের উচিত ছিল নিজে আগে আইন মেনে চলা। উদাহরণ হিসেবে বক্তারা পাইরেটেড সফটওয়্যারসহ বেশ কিছু জিনিসের কথা বলেন। ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, “নিরাপদ সড়কের জন্য পথচারীদের আইন মানা জরুরি।” তিনি আরও বলেন, “কাউকে পরামর্শ দেয়ার আগে নিজে সেটা ঠিকভাবে পালন করতে হবে, তাহলেই প্রকৃত পরিবর্তন সম্ভব।” নিজেরা আইন না মেনে শুধু চালকদের দোষারোপ করে আসলেই সমস্যার সমাধান কখনও সম্ভব নয়। এমনকি বেশিরভাগ সরক দুর্ঘটনা পথচারীরা আরেকটু সাবধান থাকলে এড়ানো যেতো।

এ দিনই প্রথম তরুণরা ইয়ুথ ম্যানিফেস্টো তৈরির কাজ শুরু করে এবং এর রূপরেখা কেমন হতে পারে তা নির্ধারন করে। সন্ধ্যায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হয় সামিটের দ্বিতীয় দিন। তবে আমার জন্য দিনটি ছিল নিজেকে শোধরানোর প্রতিজ্ঞা করার। কেননা জেনে হোক না জেনে হোক প্রায় প্রতিটি দিন বিভিন্ন আইন ভঙ্গ করে চলেছি। অথচ এই আমিই হয়তো প্রতিদিন কাউকে না কাউকে দোষারপ করে চলেছি আইন না মেনে চলার জন্য। এই উপলব্ধিটা কাজ করে যে আমার নিজের কারনেও হয়তো কারও না কারও সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। আর তাই প্রতিজ্ঞা ছিল নিজেকে শোধরাতে হবে আগে।

শেষ দিনের অভিজ্ঞতা

শেষ দিনটি ছিল সবচেয়ে বেশি ব্যস্ততাময়। দিনের শুরুটা হয় দেশের সেবা করার শপথের মধ্য দিয়ে। প্রায় চারশত তরুণ দৃঢ় প্রতিজ্ঞার সাথে দেশের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখার প্রতিশ্রুতি জানায়। এরপরেই তারা ব্যস্ত হয়ে উঠে ইয়ুথ ম্যানিফেস্টোর চূড়ান্ত রূপ দেয়ার কাজে এবং তা দিনের মধ্যভাগের মধ্যেই শেষ হয়। এরপর বিওয়াইএলসি এক্স এর প্রোডাক্ট ম্যানেজার খালেদ সাইফুল্লাহ কথা বলেন একবিংশ শতাব্দীর উপযোগী কর্মদক্ষতা নিয়ে। যেখানে তিনি একবিংশ শতাব্দীর উপযোগী করে বিওয়াইএলসি এক্স এর তৈরি করা কোর্সগুলোর সাথে সবাইকে পরিচিত করিয়ে দেয়।

মধ্যাহ্ন বিরতির পর শুরু হয় বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেত্রীবৃন্দের অংশগ্রহনে অন্যতম উল্লেখযোগ্য সেশন। সে সেশনে প্রত্যেকেই প্রতিশ্রুতি দেয় তাঁরা তরুণদের কল্যাণে কাজ করবেন। এরপর তাঁরা ডেলিগেটদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। এ সময় তাঁরা তরুণদের আরও বেশি রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান। তাঁরা মতামত দেন রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার মাধ্যমেই আসলে আরও বেশি তরুণদের প্রত্যাশা পূরণ সম্ভব। যে রাজনীতিকে অনেক সময় আমরা নোংরা বলে ফেলি সেটা ঠিক করতে হলেও তরুণদের আরও বেশি যুক্ত করা প্র সেশন শেষে রাজনৈতিক দলের নেত্রীবৃন্দের সামনে তরুণদের তৈরি করা চূড়ান্ত ইয়ুথ ম্যানিফেস্টো উপস্থাপন করা হয় এবং প্রত্যেকের হাতে সেটির একটি করে কপি তুলে দেয়া হয়। এ সময় তাঁরা জানান এই ম্যানিফেস্টো তাঁরা নিজেদের দলের কাছে পৌঁছে দিবেন যেন তা তরুণদের কল্যাণে ব্যবহৃত হয়।

তিনদিনব্যাপী সামিটের সমাপনী বক্তব্য দেন দ্যা ডেইলি স্টার পত্রিকার সম্পাদক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহফুজ আনাম। তাঁর সাবলীল বক্তব্যের মাধ্যমে সামিট ডেলিগেটদের সামনে তিনি বেশ কিছু মূল্যবান পরামর্শ তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “সম্মান পাবার প্রথম শর্ত হচ্ছে অন্যকে সম্মান করা। তুমি যদি কাউকে সম্মান কর দেখবে তারচেয়ে অনেক বেশি সম্মান তুমি পাবে।”  তাঁর এই একটি উক্তিই যদি বর্তমান সময়ে মেনে চলা হয় তাতেও আসলে আমাদের সমাজে আমূল পরিবর্তন নিয়ে আসা সম্ভব। কেননা পারস্পরিক সম্মান থাকলে যে কোনও কাজ সুষ্ঠুভাবে করা সম্ভব। উনার বক্তব্যের মধ্য দিয়ে পর্দা নামে তিন দিনের এই তরুণদের মিলনমেলার।

সামিট হয়তো শেষ, কিন্তু এর শিক্ষাগুলো যদি মনে রাখা যায় এবং প্রয়োগ করা হয় তবেই আসলে সমাজে পরিবর্তন নিয়ে আসা সম্ভব হবে। এই সম্মেলন তরুণদের মধ্যে এক বন্ধন তৈরি করে দেয়। তারা যখন বিদায় নিচ্ছিল তখনও চোখে মুখে ছিল প্রাপ্তির আনন্দ। কেননা তাদের উদ্দেশ্য সফল হয়েছে, তারা তাদের দাবিগুলো সঠিক জায়গায় তুলে ধরতে পেরেছে। মাত্র তিন দিনের মাঝেই তাদের মাঝে এসেছে আমূল পরিবর্তন। তারা প্রত্যকেই এক একজন বদলে যাওয়া তরুণ যারা দেশের কল্যাণে নিবেদিত প্রাণ।

My Experience of the One Young World 2017 Summit in Colombia

960 720 Fahmida Zaman Ema

For someone who studied politics, 2017 has been anything but a year of hope. With Brexit and the election of Donald J. Trump, it became difficult for most people to trust our fellow human being’s judgments. So, when I was preparing to attend the One Young World Summit 2017 in Bogota Colombia, I was not looking to be optimistic about the world or restoring my faith in humanity.

Much to my surprise, however, the speakers, attending ambassadors, and everyone else I had the fortune to meet in Colombia, did just that. The young ambassadors’ works in health, peace, arts, business, politics, and societies have demonstrated that remarkable things can happen when we take responsibilities for our own societies and communities.

The One Young World Summit is a global gathering where young people and world leaders come together to share innovative solutions for world’s most pressing issues. The overarching theme of One Young World 2017 was reconciliation and the role of young people in propagating peace. The 1300+ participants from 194 countries gathered in Colombia’s capital, Bogota, to discuss the most pressing issues of the world today— global peace, the high and protracted incidence of unemployment, the acute social and economic obstacles faced by women, the environmental impacts of climate change, and the road to climate action.

It also outlined the struggle with disabilities and the burning desire for it to be taken more seriously by society. An overwhelming theme emerged while discussing viable actions for change: the role that entrepreneurship and technology access will play in circumventing these challenges.

I attended the OYW 2017 summit as a Dr. Mohammad Yunus delegate representing Bangladesh. I find it quite impossible to summarize the learnings from this gathering in one article. But, here are three things that made a lasting impact on my mind.

1. Never too young to lead: There is a narrative in our societies that young people are not equipped to lead because…“ well, they are young.” But, the world is currently home to the largest generation of young people in history. With half of the world’s population being under the age of 40, it is the ideas and talents of young people that will drive the success of achieving Sustainable Development Goals by 2030 as well as take us towards an inclusive and peaceful world in the long run. Kofi Annan, Ghanaian diplomat and former seventh Secretary General to the UN, said this in his keynote speech: “You are never too young to lead, act and take charge where you can.” Mr. Anan shared his experiences of peace negotiations and advocated for establishing trust between parties, being fully inclusive, and giving everyone a voice. Proving Mr. Anan’s point, the OYW summit championed young leaders from about the world who are doing more works towards a better world than many of our governments.

2. Business with a social conscience: Social entrepreneurship was another major theme of the One Young World Summit in Bogota. Right now, eight people hold the same amount of capital wealth as the bottom half of the world. This shocking fact shows how we live in a world of growing inequality. Moreover the rising social tensions and the rapidly digitizing global economy that is changing the global economy that is changing the way to live and work. Thus, there needs to be a fundamental change in the way that we conduct ourselves on this planet. Big business needs to set goals that benefit not just the company but the society as well. They need to commit to a more sustainable and equitable world.

Muhammad Yunus, a Nobel Laureate spoke of his social business model and his 3-0 goals to create a society free of poverty, unemployment and carbon emission. Young people are already prioritizing this agenda. For example, One Young World ambassadors working at Deloitte in France are collaborating with local non-profit partners on addressing youth unemployment. And there are so many impactful OYW Ambassador-led initiatives around the world! It’s time for the big business now to support and initiate such programs to fulfill their responsibilities towards societies and communities.

3. Stories matters for peace and reconciliation: The third day of the summit featured young activist whose lives have been destroyed by wars—from Rwanda’s genocide to Colombia’s civil war to Afghanistan’s chronic conflicts. By sharing his story, Rwanda’s Hyppotitle Ntigurirwa showed us peace and reconciliation is possible, no matter what happens. Hyppotitle Ntigurirwa who spoke about his experience during the Rwandan genocide in which 1 million people lost their lives in 100 days. His story was one of survival. From the refugee camps he lived in after the genocide, he went on a journey of peace which led him to forgive his father’s killers.

One of the sessions titled “The Future of Colombia” explores the impact of the 52 years Colombia conflict and brought together young Colombians from different perspectives, including former FARC rebels, former paramilitary members, and kidnapping victims share their experience of the conflict to bring to life the impact of war on young people. The personal stories shared by these participants enabled us, the listeners who may not have any idea about the lasting impact of the war on individuals, to understand and to support the efforts to maintain peace not only in Colombia but also in any war-torn society.

In the closing session of the 2017 One Young World Summit at Simon Bolivar Park in Bogota, Ron Garan, a former Astronaut said we are a common planer with a common goal, common population, and a common destination. With that statement, he encompasses the essence of the summit. Despite the chaos of Brexit and the divisive politics of Donald Trump, there is still scope for hope as long as the ideas and works of young people are being championed. I realized, the gathering of hundreds of exceptional young minds from virtually every sector in Bogota strengthened that hope.

Putting Theories into Practice: Leadership Reflection of a Young Researcher

1280 853 Makshudul Alom Mokul Mondal

Business schools are best known to prepare students to excel in the corporate hierarchy. Despite being trained in finance and marketing at the Institute of Business Administration, the leading business school of Bangladesh, I opted to venture into the rather uncharted field of development research. Motivated by my earlier orientation and engagement with the marginalized communities of Bangladesh, it was not a difficult choice given how I wanted my life and work to create values for others, particularly for those who often get forgotten. With immense interest to support government agencies to formulate inclusive policies and strategies, I joined a policy research outfit to contribute to the process of informed policymaking.

I joined The Institute for Policy, Advocacy, and Governance (IPAG), the then lesser known think tank in Bangladesh, as a Research Assistant with very little experience in economic and social research. In spite of being apprehended by the uncertainties and risks of failing, I took the challenge as an opportunity to explore, learn, and excel by not just doing what was required but always going the extra mile. I had the privilege of working directly with the Chairman, a Wharton graduate who has an unwavering penchant for maintaining international standards, and in the process, I got opportunities to put leadership theories into action.
My first challenge was to keep my purpose alive. Unlike sales or finance, research activities do not produce immediate results or impact. And thus, having patience to do things right and staying connected with the purpose was necessary. There were so many depressing days when I questioned my achievement of the day and failed to find any. The only solution was to be connected with my purpose and remind myself how my work would make the country and the world a better place to live.

My second challenge was to minimize theoretical and subject knowledge gap and to come up to speed to make meaningful contributions in policy analysis and recommendations. I was already communicating with experienced scholars and policymakers and I had very little scope for errors and complacency. While there is no shortcut to gaining knowledge, you can expedite the process by reading relentlessly and persistently. When I was struggling, my main source of motivation was my sincere interest and passion for knowledge.
The third challenge was to convey your thoughts and recommendations without alienating the recipient, particularly for a young researcher like me. Communication is key to policy changes because people do not question the message first, they question the messenger. There is no alternative but to establish your credibility so that they listen to your ideas. For that, you need to be an empathetic and compassionate communicator with a firm grasp of the issue at hand who understands and values people’s opinion and humbly puts forward thoughts backed by solid data and research. You will also need allies to help bolster and champion your ideas.

My last biggest challenge was that I didn’t want to work. Yes, I might seem very contradictory but its true. I have seen many people who work to tick off his responsibilities with questionable dedication, commitment, and loyalty to the organization for a month-end salary. This seemed a very narrow and bleak outlook to life. I didn’t want to work but I wanted to live in work. My vision was to create a legacy so that when I would leave others could get benefitted from my work and I might have also be considered as an inspiration for future young researchers who will create and disseminate knowledge for good.

If I am asked about my biggest success as a researcher, I would humbly say that I made small contributions to take IPAG to new heights where IPAG is now ranked among the top 50 leading international development think-tanks in the world published by Think Tanks and Civil Societies Program (TTCSP) at the Lauder Institute, University of Pennsylvania. As a recognition of my contribution, I was promoted as the youngest Fellow at IPAG and entrusted with leadership responsibilities.

Now, when I reflect, I realize how my initial leadership training guided me to achieve what I could. Theories are established out of realities and are often obsolete if not applied. Simple yet powerful precepts of leadership such as ‘knowing the purpose’, ‘being passionate about what we do’ and ‘creating value of others and leaving a noteworthy legacy’ surely guided me and will continue to take me to new heights. As a firm believer of what Tim Cook, CEO of Apple said about ethical leadership ‘leaving things better than you found them’, I hope to practice leadership to create values and make things better for everyone.

Makshudul Alom Mokul Mondal

Makshudul Alom Mokul Mondal, is a young researcher and also the co-founder of Youth Opportunities, one of the leading opportunity discovery platforms for youth across the world. Makshudul is also a Global Shaper at the Dhaka Hub, an initiative of the World Economic Forum (WEF). He is a graduate of BYLC BBLT 5 and was an Instructor of Leadership for several BYLC’s programs.

আমি, স্বপ্নের পথ যাত্রী

3600 2400 Mutasim Billah

যে স্বপ্নের মধ্যে সীমানা থাকে তাকে কি স্বপ্ন বলা যাবে? সে যাত্রাকে কি স্বপ্ন যাত্রা বলা যাবে যার কিনা শেষ আছে? শেষই যদি হবে তবে তা আর স্বপ্ন কেন?

ছোট বেলা থেকেই আমাদেরকে স্বপ্ন দেখানো হয়। বড় হয়ে আমাদের অর্জন কি হবে কিংবা কি হওয়া উচিত তা নিয়ে। সে লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়ার জন্য আমাদেরকে অনেক কিছুই বলা হয়, যেটি বলা হয় না তা হল নিজেকে চেনার কথা। অথচ যে স্বপ্ন দেখে যাচ্ছি তা পূরণ করতে হলে সবার প্রথম নিজেকেই যে চিনতে হবে সে উপলব্ধিটুকুই আমাদের নেই।

 আমার নিজেকে জানার যাত্রাটি শুরু হয় ২০১০ সালে যখন আমি বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশীপ সেন্টার নামে একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে নেতৃত্ব শেখা শিখতে আসি। ওখানে গিয়ে দেখলাম একটা রুমের মধ্যে আরো ৪২ জন শিক্ষার্থী আমার মত একই রঙের টি শার্ট গায়ে বসে আছে। তাদের সাথে বসে আমার অনুভুতি হল যে এখানে দেশ সেরা স্কুল, কলেজ এবং মাদরাসা থেকে অসাধারণ সব মানুষজন বসে আছে। তাদের সাথে টিকে থাকার লড়াইটা আমার জন্য খুব কঠিন হবে। যতই দিন যাচ্ছে আমি অবাক হয়ে দেখলাম যে সবাই কত কিছু জানে আর একেক জন জীবনের দৌড়ে আমার থেকে কত এগিয়ে।
 ঐ প্রোগ্রামেই উপলব্ধি করতে পারলাম যে আমিও পারি নিজের জীবন পরিবর্তনে অবদান রাখতে, যে অবদান হয়ত বদলে দিতে পারে আরো দশ জনের জীবন। বদলে দিতে পারে বাংলাদেশ।
 তখন থেকেই চিন্তা হতে থাকে যে, সবাই যদি নিজের ভাল চায়, অন্যের ভাল চায়, সর্বোপরি দেশের ভাল চায় তাহলে সমস্যাটা কোথায়? কেন আমাদের সেই স্বপ্নের বাংলাদেশের দিকে আমরা এগিয়ে যাই না?
 ধীরে ধীরে জেনে গেলাম, যে বাংলাদেশ কে নিয়ে স্বপ্ন আমাদের এক হলেও সেই সেই স্বপ্নকে আমরা শিক্ষা মাধ্যমের নামে তিনটি ভাগে ভাগ করে রেখেছি। যে মাধ্যমে থেকে আমরা একে অপরের ব্যপারে না জেনে হয়ত লালন করছি অনেক ভুল ধারনা। যার ফলশ্রুতিতে হয়ত তাদের মূল্যবোধকে সম্মান জানাতে পারছি না। বুঝতে পারছি না তাদের অবদানকে যা তারা দেশের জন্য করে যাচ্ছে।

আমাদের অভিযোগের কোন শেষ নেই। নানা রকম সমস্যায় জর্জরিত আমরা। কিন্তু কখনো হয়ত অনুভবই করি না যে আমাদের সমস্যার জন্য অনেকাংশে আমি নিজেরাই দায়ী। সেখানে তা সমাধানের জন্য আরেকজনের দিকে তাকিয়ে থাকলে এগিয়ে যাবো না কখনই। সমস্যার জন্য দায়ী করে আমরা সবসময় বলি আমাদের দেশে সঠিক নেতৃত্ব নেই। নেতৃত্ব নিয়ে যখনই কথা হয় আমরা কিছু সুমহান গুনাবলির কথা বলি। কিন্তু বলি না যে আমাদের জায়গা থেকে আমরা কি করতে পারতাম। না বলার কারনটা, হয়তো আমাদের মাঝে সে বিশ্বাসই নেই যে আমরাও পারি।

 সেই অনুভুতি থেকেই আমার পথ চলা শুরু। এরপর থেকে যতবার থেমে গিয়েছি, বারবার নিজেকে শুনিয়েছি ‘আমি পারি’। বিওয়াইএলসির ঐ প্রোগ্রামেই আমি শিখেছিলাম কিভাবে মানুষের সামনে দাড়িয়ে কথা বলতে হয়। কিভাবে নিজের বক্তব্যটি কার্যকর ভাবে তুলে ধরা যায় মানুষের সামনে। এরপর থেকে যখনই সুযোগ পেয়েছি কথা বলেছি মানুষের সামনে। চর্চা করেছি, নিজের কথা বলার দক্ষতা কে বাড়িয়ে তোলার চেষ্টা করেছি। দীর্ঘ ৪ মাস পর যখন ঐ প্রশিক্ষণ শেষ হল তখন মনে হল এবার আমার পালা। যা শিখেছি তা কাজে লাগাতে হবে। আমিও এবার মানুষকে স্বপ্ন দেখাব। যারা আমার মতই আটকে আছে নিজের জীবনের গন্ডিতে তাদেরকে দেখাব কিভাবে তারাও পারে তাদের স্বপ্নকে সীমাহীন দিগন্তে ছড়িয়ে দিতে।
 এর পাশাপাশি একটা চিন্তা ছিল। আমি যে সুযোগ পেয়েছি তা সবাই পায় না, আর অনেকেই পেয়ে কাজে লাগায় না। ঐ সময়টাতে যারা সুযোগ পায় না তাদের জন্য খুব বেশি কিছু করার না থাকলেও সুযোগ ছিল যারা সুযোগ পায় তারা যেন তা কাজে লাগাতে পারে তাতে সাহায্য করা। সেই উদ্দেশ্য নিয়েই শুরু করলাম নেতৃত্ব পড়ানো। বাংলাদেশের ভিন্ন আর্থ সামাজিক অবস্থান থেকে উঠে আসা তরুণপ্রাণদের সাথে কাজ করার মাধ্যমে দেশের সার্বিক অবস্থার উন্নয়নের পাশাপাশি নিজের ও অন্যদের মাঝে নেতৃত্বের গুনাবলি ছড়িয়ে দেয়াই উদ্দেশ্য। শুরু করলাম বিওয়াইএলসি’রই ১ মাসের প্রশিক্ষণ প্রোগ্রাম দিয়ে।
সেই প্রোগ্রামে আমার অনেক অভিজ্ঞতা হয়, পরিচয় হয় অনেকগুলো সুন্দর মানুষের সাথে। যাদের সাথে এখনো আমার যোগাযোগ আছে, যাদের কাছ থেকে এখনো অনেক কিছুই শিখি। সেখানে কারো জীবনে কোন সামান্য অবদান রেখেও যে তাদের জীবন বদলে দেয়া যায় সেটা নিজের চোখেই দেখতে পেয়েছিলাম। ২০১২ সালে ওই প্রোগ্রামের শেষে বিওয়াইএলসি’র সকল গ্র্যাজুয়েটদের নিয়ে গঠিত এলামনাই বিওয়াইএলসি গ্র্যাজুয়েট নেটওয়ার্ক – বিজিএন’র পরিচালনা কমিটির নির্বাচন। মাদরাসা মাধ্যম থেকে নিজে প্রতিনিধিত্ব করার জন্য নির্বাচনে দাঁড়ালাম। সেদিন হেরে গিয়েছিলাম। কিন্তু ওই নির্বাচনটা আমাকে অনেক চিন্তার খোঁড়াক দিল। আসলেই যদি ভাল কিছু করতে চাই তবে কি একটি পদ খুব বেশি দরকার? নির্বাচনে জিততে পারি নি, তবে কি আমাকে দিয়ে হবে না?

বুঝতে পেরেছিলাম যে, যদি তীব্র ইচ্ছা থাকে তবে ঐ সব ছাড়াও এগিয়ে যাওয়া যায়, অন্যদের এগিয়ে নিয়ে যাওয়াও যায়। তখন থেকেই চেষ্টা করেছি নিজেকে গড়ে তোলার। ২০১৪ সালে যখন আবার বিজিএন এর নির্বাচন হয় তখন আমি প্রতিনিধিত্ব করি বিজিএন প্রেসিডেন্ট এর পদটির জন্য। জানি না কোথা থেকে পেয়েছিলাম ঐ সাহস, তবে ঠিকই দায়িত্ব পেয়েছিলাম দেশ সেরা প্রায় ২৫০০ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে গঠিত বিজিএন’র প্রধান হিসেবে কাজ করার। নিজেকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম তা পূরণ হল। তবে যুদ্ধ মাত্র শুরু। এত বড় দায়িত্ব পালনের কোন যোগ্যতা তখনও আমার হয়ে উঠে নি। নিজেকে গড়ে তোলার আসল কাজটা এবার যে করতেই হবে। যে কাজটা আজ অবধি করে যাচ্ছি। কাউকে কিছু প্রমাণ করতে চাইনি কোনদিন শুধুমাত্র নিজেকে প্রমাণ দিতে চেয়েছি যে ‘আমি পারি’। আমি জানি আমি কোন জায়গা থেকে নিজেকে কোথায় নিয়ে এসেছি এবং কোথায় নিয়ে যেতে চাই।

 প্রতিদিন নিজের জন্য নতুন নতুন লক্ষ্য ঠিক করেছি। কারো সাথে প্রতিযোগিতা ছিল না, যা ছিল তা নিজের সাথেই। আমাকে যারা জীবনে বড় হতে শিখিয়েছেন আমি সব সময় তাদের মত হতে চেয়েছি। হতে চেয়েছি নিঃস্বার্থ, হতে চেয়েছি এমন একজন মানুষ যাকে যে কেউ তার উপকারে খুঁজে পায়। একটি একটি করে ধাপ এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছি।
এই পথ চলার মধ্যেও আমাকে পিছন থেকে টেনে ধরার মত অনেক কিছুই ছিল। ব্যক্তিগত জীবনে হেরে যাওয়া, মানুষের অনুৎসাহিত করার মত কথা। অনেক কিছু। ২০১৫ সালে আমি দ্বিতীয়বারের মত নির্বাচন করেছিলাম বিজিএন’র সভাপতি পদের জন্য। আগের ১ বছর নিজের সামর্থ্যের সবটুকু দিয়ে কাজ করেছিলাম প্রতিষ্ঠানটিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার, চেষ্টা ছিল একে যেন হাজারো তরুণের স্বপ্ন পূরণের প্লাটফর্ম হিসেবে তৈরি করতে পারি। কিন্তু নির্বাচনে আমি হেরে গিয়েছিলাম। বিশাল ব্যবধানে। তখন যতটা না কষ্ট পেয়েছিলাম তার চেয়ে বেশি শিক্ষা, উপলব্ধি হয়েছিল। আমি অনেকটাই নিশ্চিত ছিলাম আমি জিতে যাবো। এখন আমি বুঝি, ঐ ঘটনাটার কারণে আমি ভুলে গিয়েছিলাম আমাকে অনেক শিখতে হবে।
 এরপর জীবনে আরো বেশ কিছু সুযোগ আমি পেয়েছি, পেয়েছি অনেক সম্মান। কিন্তু কখনো নিজের অতীত ভুলে যাই নি, নিজের শেখার আগ্রহকে দমে যেতে দেই নি কখনো। মনে হয়নি আমার জীবনের লক্ষ্য পূরণ হয়ে গেছে। কারন আমি জানি আমার স্বপ্নের কোন সীমানা নেই। আমাকে যেতে হবে অনেক দূর।
 অনেকেই আমাকে জিজ্ঞাসা করে আমার অর্জন কি? আমি কখনো তাদের উত্তর দেই না। হাসি। কারন আমি জানি এবং বিশ্বাস করি যে আমার কাজই তাদের সে প্রশ্নের উত্তর। তবে যখন নিজের অজান্তে নিজের মনে এমন প্রশ্নের উদ্ভব হয় তখন নিজেকে বলি, কেউ যখন বলে আমার জন্য তার জীবনে সে স্বপ্ন দেখতে শিখেছে সেটি কি অর্জন নয়? যখন শত মানুষের সামনে দাড়িয়ে কথা বলার সুযোগ হয়েছে এবং সে কথায় কারো জীবন পরিবর্তন হয়েছে, তা কি সফলতা নয়?
 আমি এখনো কাজ করে যাচ্ছি, স্বপ্নের কাজ। পরিবর্তনের পথে হেঁটে চলছি আমি, স্বপ্নের পথ যাত্রী।

Expert’s Insights: An Interview with Arif Ainul Suman

3791 2464 Saanjaana Rahman

Arif Ainul Suman is the Executive Director, Corporate Banking, Standard Chartered Bank. A topper in his batch from IBA, Mr. Suman passionately pursued his career with leading multi-national financial institutions past 18-years in the arena of providing financing solutions and risk management for leading local corporate clientele. Besides providing Working Capital Solutions and Trade Finance Structuring, he has substantial experience in Specialized Financing and Advisory. He is considered a pioneer in power sector having been involved in raising financing for approximately 20% of country’s private sector generation capacity.

read more

Seo wordpress plugin by www.seowizard.org.