কোটা নিয়ে ভাবনার পাশাপাশি তরুণদের স্কিল ডেভেলপমেন্ট নিয়েও ভাবতে হবে

কোটা নিয়ে ভাবনার পাশাপাশি তরুণদের স্কিল ডেভেলপমেন্ট নিয়েও ভাবতে হবে

1920 1280 Sherazoom Monira Hasib

দেশের তরুণ সমাজ এ মুহূর্তে কিছু অস্থিরতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন দাবি আদায়ের জন্য তরুণরা কিছু কিছু ক্ষেত্রে সহিংসতার পথও বেছে নিচ্ছে। যাতে করে সামগ্রিকভাবে একটা বিশৃঙ্খল অবস্থা তৈরি হয়েছে। এসব ব্যাপার নিয়ে তরুণরা কি ভাবছে তা নিয়েই ১২ জুলাই, ২০১৮ তে-বিওয়াইএলসি হেডকোয়ার্টারে অনুষ্ঠিত হয় নিয়মিত আয়োজন ‘বিওয়াইএলসি স্যোশাল’। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বিওয়াইএলসি মার্কেটিং এন্ড আউটরিচ বিভাগের নির্বাহী সাখাওয়াত হোসেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিওয়াইএলসি’র চারজন গ্র্যাজুয়েট।

প্রসঙ্গত, কোটা ব্যবস্থা চালু হয় ১৯৭২ সালের পর থেকে। তখন মুক্তিযোদ্ধাদের তথা তাদের পরিবারের উন্নয়নের জন্য কোটা ব্যবস্থা প্রচলন করা হয়। তারপর থেকে বিভিন্ন সময়ে কোটার পরিমাণ কখনও হ্রাস আবার কখনও বৃদ্ধি পেয়েছে। সর্বশেষ কোটা ব্যবস্থাতে সংযোজন করা হয় মুক্তিযোদ্ধাদের তৃতীয় প্রজন্মের জন্যও কোটা ব্যবস্থা বহাল থাকবে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে তরুণদের থেকে দাবি আসে যে, কোটা ব্যবস্থার সংস্কার করতে হবে। তখন সরকারিভাবে এ ব্যপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানানো হয়। কিন্তু এর মধ্যেই কিছু তরুণ আবারো আন্দোলন করতে থাকে যাতে কিছু অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এসব ব্যাপার নিয়ে তরুণরা কি ভাবছে আমরা জানতে চেয়েছিলাম তাদের কাছে।

প্রথমেই তরুণরা এ ব্যপারে একমত পোষণ করে যে কোটা একেবারে বাতিল করা  উচিত হবে না। বরং যৌক্তিকভাবে কোটার পরিমাণ হ্রাস করা যেতে পারে। শুরুতেই ঢাকা ট্রিবিউন পত্রিকার সাংবাদিক, মুতাসিম বিল্লাহ বলেন, “যে কোনও আন্দোলনের সময়ই আমরা একটা দ্বন্ধে থাকি যে আন্দোলনটা আসলে কে পরিচালনা করছে বা কে করবে। যেকোন আন্দোলনের দায়িত্ব এমন কারো হাতে তুলে দেয়া উচিত নয় যে নিরপেক্ষভাবে দাবি উত্থাপন করতে পারে না। যে ব্যাপারটা কোটার দাবি আদায়ের আন্দোলনে রক্ষা করা সম্ভব হয়নি।”

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সব সময়ই পরিলক্ষিত হয়, যে কোনও আন্দোলন থেকেই কেউ না কেউ সুবিধা আদায় করতে চায়। আর তাতে করে অনেক সময়ই মূল উদ্দেশ্য ব্যাহত হয়। তাই তরুণদের উচিত, যে কোন দাবি উত্থাপনের সময় খেয়াল রাখা যেন কেউ তাদের ভুল পথে পরিচালিত করতে না পারে। একই সাথে কর্তৃপক্ষের উচিত হবে তরুণদের কথা এবং তরুণরা দেশ নিয়ে কি ভাবছে তা শোনার চেষ্টা করা।

কোটা ব্যবস্থা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে, যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি বিষয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থী তাসনিম মোস্তাকিম বলেন, আমাদের আসলে বুঝতে হবে কোটা ব্যবস্থা কি ধরনের সুবিধা দিতে পারছে। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের উদাহরণ দিয়ে বলেন, সেখানে এখনও পর্যন্ত কালোদের জন্য বিশেষ সুবিধা দেয়া হয়। এর পিছনে কারন হচ্ছে, এক দুই জেনারেশনে আসলে কোনও একটা জাতি বা গোষ্ঠীর খুব বেশি সামাজিক পরিবর্তন হয় না। সে কারনে আমাদের ভাবতে হবে আসলে কোটা ব্যবস্থার কি ধরনের পরিবর্তন হওয়া উচিত। তবে একই সাথে তিনি এটাও বলেন যে, আমাদের দেশের প্রেক্ষাপট চিন্তা করেই আসলে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

তাসনিমের বক্তব্য অনুযায়ী, কর্তৃপক্ষকে ভেবে দেখতে হবে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থা অনুযায়ী আসলে ঠিক কি ধরনের সংস্কার দরকার। সরাসরি কোটা বাতিল করে দেয়া কখনও সুষ্ঠু সমাধান নিয়ে আসবে না। কর্তৃপক্ষকে তরুণদের এবং পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠী দুই পক্ষের কথা ভেবেই একটা সুষ্ঠু সমাধান নিয়ে চিন্তা করতে হবে। বিশেষ করে সরকারী চাকরিতে নারীদের প্রতিনিধিত্ব অবশ্যই নিশ্চিত করা দরকার। পাশাপাশি আমাদেরকে এটাও মাথায় রাখতে হবে যে, মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাই এমন কোনও সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত হবে না যাতে করে তাদের অসম্মান করা হয়। তাদের জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা আমাদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে।

গত দুই তিন বছরে দেখা গেছে, যে কোনও ন্যায্য দাবি আদায়ে তরুণরা আন্দোলন করছে। বিশেষ করে শাহবাগে তরুণদের গণজাগরণ আমাদেরকে ইঙ্গিত দেয় যে তরুণরা দেশ নিয়ে ভাবছে। সাম্প্রতিক সময়ে কোটা আন্দোলন করতে গিয়ে তরুণদের মধ্যে অনেক বিভ্রান্তি তৈরি হয় এবং সে সূত্র ধরে বেশ কিছু অপ্রত্যাশিত ঘটনা আমরা দেখতে পাই। এ ব্যাপারে তরুণদেরকে আরও বেশি সতর্ক হতে হবে। তরুণদের উন্নয়নের স্বার্থেই তাদেরকে একসাথে কাজ করতে হবে। সবাই মিলে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চিন্তা না করলে সামগ্রিক  উন্নয়ন কখনও সম্ভব হবে না।

“ফাল্গুনী দেব বলেন, কর্তৃপক্ষ কে বুঝতে হবে যে এই ধরনের আন্দোলন আসলে তাদের বিপক্ষে নয়। তাই তরুণদের কথা বলার সুযোগ দিয়ে তাদের মনের কথা বুঝার চেষ্টা করতে হবে।” এটা সত্যি যে কর্তৃপক্ষের সব দাবি মেনে নেয়া সম্ভব হবে না। তাদের অনেক কিছু বিশ্লেষন করে দেখতে হবে আর এর জন্য সময় দরকার। তাই দুই পক্ষের ধৈর্য এখানে খুবই জরুরি।

এর পাশাপাশি আহমেদ সাব্বির যোগ করেন, “সরকারি চাকরির উপরে তরুণদের নির্ভরশীলতা কমাতে হবে। কেননা শুধু সরকারি চাকরিতে এই বিশাল অংশের তরুণদের চাইলেও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়।”

তরুণদের উন্নতিতে একবিংশ শতাব্দীর জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জনের কোনও বিকল্প নেই। পাশাপাশি তরুণদের উচিত হবে নতুন নতুন উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে আসা। এতে করে তারা আরও নতুন নতুন তরুণদের কাজের ব্যবস্থা করতে পারবে। কর্তৃপক্ষকেও ভাবে দেখতে হবে কিভাবে তরুণদের সুন্দর সুন্দর আইডিয়া গুলোকে বাস্তবিক রূপ দেয়া যায়।

বিভিন্ন পর্যায়ের তরুণদের কাছ থেকে মতামত নেয়ার পরে যেটা বোঝা যায় তা হচ্ছে, কেউই আসলে চাচ্ছে না যে কোটা বাতিল হয়ে যাক। সবার একটাই কথা, কোটা ব্যবস্থা দেশের সব পর্যায়ের মানুষের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজন। বিশেষ করে, নারীদের ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী কে দেশের মূল ধারায় অবশ্যই নিয়ে আসতে  হবে আর সেটার মাধ্যমেই সামগ্রিক উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে।

Sherazoom Monira Hasib

Sherazoom Monira Hasib is currently working as the Executive in Communication team of BYLC.

All stories by:Sherazoom Monira Hasib

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Sherazoom Monira Hasib

Sherazoom Monira Hasib is currently working as the Executive in Communication team of BYLC.

All stories by:Sherazoom Monira Hasib
Seo wordpress plugin by www.seowizard.org.